হামলা করে আ.লীগ নির্বাচন বাঞ্চালের ষড়যন্ত্র করছে: ইশরাক

রবিবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২০

ঢাকা : রাজধানীর গোপীবাগ-দিলকুশা এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণার সময় দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ধানের শীষের মেয়রপ্রার্থী ইশরাক হোসেনের সমর্থকদের ওপর আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকরা হামলা চালিয়েছে। এতে সাংবাদিকসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। আজ দুপুর ১টার দিকে এ সংঘর্ষ শুরু হয়ে আধাঘণ্টা ধরে ইটপাটকেল নিক্ষেপ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে নেয়।

এরপর তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় ইশরাক বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণভাবে গণসংযোগ চালাচ্ছিলাম। গণসংযোগ শেষে হাটখোলা থেকে টিকাটুলী হয়ে আমার বাসার দিকে ফিরছিলাম। আপনারা দেখেছেন এখানে একটি নির্মাণাধীন বিল্ডিংয়ে আওয়ামী লীগের এক কাউন্সিলর প্রার্থীর ক্যাম্প রয়েছে। ওয়ার্ড ৩৯ প্রার্থীর নাম আমি জানি না। তার ক্যাম্পের ২তলা থেকে একদল যুবক বড় বড় ইট নিক্ষেপ করে। এ সময় আমাদের কর্মীরা আহত হয়। এ ঘটনায় ক্যামেরাম্যানরাও আহত হয়েছেন।’

বিএনপির এই প্রার্থী বলেন, ‘আমি এগিয়ে গিয়ে তাদের বলি, আপনারা শান্ত থাকেন আমরা চলে যাচ্ছি। এরপর আমার কর্মীরা আমাকে ধরে নিয়ে আসে। তখন আমি জানতে পারি যে আমার একজন কর্মীকে তারা আটক করে ভেতরে নিয়েছে, আমি তাকে ছাড়ানোর জন্য এগিয়ে যাই। পরে সম্ভবত আমাদের কর্মীরা তাকে বের করে আনে, আমাকেও নিবৃত্ত করে বাসার দিকে নিয়ে আসে। এবং আসার পথে কয়েকটা ইট আমার গায়েও লাগতে গিয়েছিল, আমার কর্মীরা আমাকে রক্ষা করে।’

এ সময় গুলির আওয়াজ শুনতে পেয়েছেন জানিয়ে এই মেয়রপ্রার্থী বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ৭-৮ জন আহত হয়েছে বলে আমরা জানি, বাকিদের কথা আমরা জানি না। এ সময় বাংলাভিশন, সময় টিভিসহ গণমাধ্যমের ২-৩ জন ক্যামেরাম্যান আহত হয়েছে।’

আমাদের পক্ষ থেকে কে গুলি করবে?- প্রশ্ন রেখে ইশরাক বলেন, ‘আমাদের তো অস্ত্র থাকতে হবে! এই আমলে কি মনে হয় আমাদের হাতে অস্ত্র আছে? এই সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ সরকারের হাতেই তো অস্ত্র আছে, এটাতো সবাই জানে, সারা বাংলাদেশ দেখেছে। তারা আমাদের জনপ্রিয়তায় ভীত। আমরা তো গণসংযোগ করছিলাম, বিনা উসকানিতে কেন আমাদের ওপর হামলা করা হলো, আমাদের দিকে গুলি করা হলো? চেয়ার নিক্ষেপ করা হয়েছে, বড় বড় ইট নিক্ষেপ করা হয়েছে।’

‘আমাদের গণসংযোগের কর্মসূচি ছিল মতিঝিল হয়ে ইত্তেফাকের মোড় হয়ে আমরা বাসার দিকে আসব। আমরা হাটখোলা দিয়ে বাসায় আসছিলাম। আমার পৈত্রিক বাসস্থান এখানে, আমার কি বাসায় আসার সময় ১০-১৫টা থানা বলে আসতে হবে যে আমি বাসায় যাচ্ছি। আমি কী বাসায় আসতে পারব না গণসংযোগ শেষে?’ প্রশ্ন রাখেন দক্ষিণের এই মেয়রপ্রার্থী।

তিনি আরও বলেন, আ.লীগ নির্বাচন বাঞ্চালের ষড়যন্ত্র করছে। এ হামলার ঘটনায় আমরা মামলা করবো। কিন্তু, মাঠ ছেড়ে যাবো না।