মাদাগাস্কারে প্রবল বর্ষণ-বন্যায় নিহত ৩১

রবিবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আফ্রিকার দক্ষিণ-পূর্বের দ্বীপরাষ্ট্র মাদাগাস্কারে সপ্তাহব্যাপী ভারী বৃষ্টিপাত এবং বন্যায় কমপক্ষে ৩১ জন নিহত হয়েছে। এতে বাস্তুচ্যুত হয়েছে ১ লাখ ৭ হাজার মানুষ। দেশটির কর্মকর্তারা শনিবার এসব জানিয়েছেন। খবর আল জাজিরা।

দেশটির জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অফিস জানিয়েছে, দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে এক সপ্তাহের ভারী বৃষ্টির ফলে সৃষ্ট বন্যায় মাদাগাস্কারে কমপক্ষে ৩১ জন মারা গেছে। পর্যটনের জন্য জনপ্রিয় মিতসিনজো ও মাভাতনানা জেলায় তীব্র বন্যায় কমপক্ষে ১৫ জন নিখোঁজ রয়েছেন।

দেশটির জাতীয় দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার ব্যুরো (বিএনজিআরসি) ব্যাপক বন্যায় হুঁশিয়ারি দিয়েছে, যে নিম্নাঞ্চল ও ধান আবাদের অঞ্চলে বন্যার ফলে “খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা এবং অপুষ্টি” ঝুঁকির সৃষ্টি হয়েছে। তারা আরও জানিয়েছে, মৌলিক পণ্যের সরবরাহ ব্যাহত হওয়ায় দাম বাড়তে পারে।

বন্যা, প্রবল বর্ষণ ও খারাপ আবহাওয়া প্রায় ১ লাখ ৭ হাজার মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। এ ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী ক্রিস্টিয়ান এনটস উদ্ভূত পরিস্থিতিকে “জাতীয় বিপর্যয়” হিসেবে ঘোষণা করেছেন।

ব্যাপক বৃষ্টিপাতের কারণে রাস্তার চিহ্নগুলি ভেসে গেছে, রাস্তা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চলে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। মুষলধারে বৃষ্টিপাত গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলিকে দুর্গম করে তুলেছে। এছাড়া তানাম্বি শহরের কাছে একটি বাঁধে ফাটল ধরে আশেপাশের গ্রাম ও কৃষিজমি প্লাবিত হয়ে গেছে।

“সরকার মালাগাসির জনগণকে জরুরি সহায়তা, দ্রুত পুনরুদ্ধার, পুনর্বাসন ও আবাসস্থল পুনর্নির্মাণে সহায়তা করার জন্য জাতীয় ব্যক্তিত্ব এবং আন্তর্জাতিক অংশীদারদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে” বলে এক বিবৃতিতে দেশটির মুখপাত্র লালাতিয়ানা আন্ড্রিয়াটোঙ্গারিভো জানিয়েছেন।

গ্রীষ্মমন্ডলীয় অঞ্চলে ভারত মহাসাগরে অবস্থিত দ্বীপরাষ্ট্রটিতে বছরে ছয় মাসের তীব্র বর্ষণের ফলে প্রায়শই হতাহত ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটে।

আফ্রিকার দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলবর্তী প্রাক্তন ফরাসি উপনিবেশে সাধারণত বর্ষাকাল অক্টোবর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত থাকে। বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি বন্যার ঝুঁকি এবং তীব্রতা অনেকাংশে বাড়িয়ে দিয়েছে। কারণ, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে বায়ুমণ্ডলে বেশি জল জমতে থাকায় এবং বৃষ্টিপাতের ধরণ ব্যাহত হওয়ায় এমন ঘটছে বলে জানান বিশেষজ্ঞরা।