তুরস্কে শক্তিশালী ভূমিকম্পে নিহত বেড়ে ৩১

রবিবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: তুরস্কের পূর্বাঞ্চলে ৬.৮ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে মৃত বেড়ে ৩১ জন হয়েছে। ওই ঘটনায় আহত হয়েছিল কমপক্ষে ১ হাজার ৪৬৬ জন মানুষ। এছাড়া ভূমিকম্পের পর কমপক্ষে ৩০ জন নিখোঁজ রয়েছে। উদ্ধারকারী দল ধ্বংসস্তূপে জীবিতদের উদ্ধারে তল্লাশী চালাচ্ছে। খবর আনাদুলু এজেন্সি।

দেশটির দুর্যোগ ও জরুরী ব্যবস্থাপনা সংস্থা (এএফএডি) জানিয়েছে, শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) স্থানীয় সময় রাত ৮টা ৫৫ মিনিটে ইলাজিগের সিভ্রিস জেলায় ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। এর উৎপত্তিস্থল ছিল ভূপৃষ্ঠের ৬ দশমিক ৭ কিলোমিটার গভীরে। ভূমিকম্পের পর দফায় দফায় কম্পন অনুভূত হয়।

ইলাজিগ প্রদেশ ছাড়াও দক্ষিণাঞ্চলীয় আদানা ও উত্তরাঞ্চলীয় সামসুন এলাকাতেও কম্পন অনুভূত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৭। স্থানীয় সময় শুক্রবার রাতে পূর্বাঞ্চলীয় ইলাজিগ প্রদেশে ভূমিকম্পটি আঘাত হানে।
দেশটির স্বরাষ্ট্র, পরিবেশ ও স্বাস্থ্য মন্ত্রীরা জানিয়েছেন, ভূমিকম্পের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩১ জন নিহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ইলাজিগ প্রদেশ এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত পার্শ্ববর্তী প্রদেশ মালাতিয়ার অধিবাসীরা রয়েছেন। এ ঘটনায় প্রায় ১ হাজার ৪৬৬ জন আহত হয়েছে বলে তারা জানিয়েছে।

তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুলেমান সোইলু বলেছেন, “কম্পনের ফলে বেশকিছু ভবন ধসে পড়েছে। মালাতিয়ায় ধ্বংসস্তূপের নীচে কেউ আটকা পড়েনি। তবে ইলাজিগে বর্তমানে নিখোঁজ ৩০ জন নাগরিকের সন্ধান ও উদ্ধার প্রচেষ্টা চলছে।”

ঘটনাস্থলের এএফপির সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, উদ্ধারকারী দল এলাজিগ থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে একটি গ্রামে পাঁচতলা ধসে পড়া ভবনে আটকা পড়া জীবিত লোকদের সন্ধান করছে। একজনকে ধ্বংসস্তূপ থেকে জীবিত টেনে বের করা হয়েছিল।

প্রাদেশিক রাজধানী এলাজিগের ৪৭ বছর বয়সী মেলাহাট ক্যান এএফপিকে বলেছেন, “এটি (ভূমিকম্প) খুব ভয়ঙ্কর ছিল, আমাদের উপরে আসবাবপত্র পড়েছিল। আমরা প্রাণ বাঁচাতে ঘরের বাইরে ছুটে এসেছি।” এ সময় আতঙ্কিত হয়ে বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে আসা লোকেরা রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে হিমশীতল তাপমাত্রায় গরম থাকার জন্য চেষ্টা করছিল।

ভূমিকম্পের পর তুরস্কের রাষ্ট্রপ্রধান রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান এক টুইট বার্তায় বলেছেন, “আমরা আমাদের জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছি।” ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্থ লোকদের সহায়তার জন্য সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। এটি জনমনে ব্যাপক ভয় তৈরি করেছে বলেও জানান তিনি।
ভূমিকম্প আক্রান্ত সিভ্রিস পর্যটন সমৃদ্ধ একটি শহর। এটি হাজারী হ্রদের তীরে এলাজিগ শহরের দক্ষিণে অবস্থিত। এই অঞ্চলের অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন স্পট এবং টাইগ্রিস নদীর উৎস।

এদিকে ভূমিকম্পে নিহতদের নিয়ে অনুষ্ঠিত জানাযায় উপস্থিত হয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান।