বরিশাল আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে ১১ পদে ৩১ জনের মনোনয়ন ক্রয়

শুক্রবার, জানুয়ারি ২৪, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির পরিচালনা কমিটির নির্বাচনকে সামনে রেখে মনোনয়ন পত্র বিক্রয় শুরু করেছে নির্বাচন উপ-পরিষদ। গতকাল বৃহস্পতিবার নির্বাচনী মনোনয়ন পত্র বিক্রির শুরুর দিনে ১১টি পদের বিপরীতে ৩১ জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেছেন। এর মধ্যে বিএনপি ও ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থীরা ছাড়াও গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদ নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেছেন।

এছাড়াও সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সভাপতি পদে আরও দুই জন মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেছেন। যারা মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেছেন তাদের মধ্যে রয়েছে সভাপতি পদে বিএনপি সমর্থিত মজিবর রহমান নান্টু, ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সমর্থিত মো. আফজালুল করিম, গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদের হিরন কুমার দাস। এছাড়াও সতন্ত্র প্রার্থী ডি কে চ্যাটার্জী দিলিপ ও তারিকুল ইসলাম।

সহ-সভাপতি পদে বিএনপি সমর্থিত অসীম কুমার বাড়ৈ, সেলিনা পারভিন, আওয়ামীলীগ সমর্থিত অসিত রঞ্জন দাস, সালাহ উদ্দিন সিপু, গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদের সুভাষ চন্দ্র বিপ্র বেদাত্তী। সাধারন সম্পাদক পদে বিএনপি সমর্থিত মির্জা মো. রিয়াজ হোসেন, আওয়ামীলীগ সমর্থিত কাইয়ুম খান কায়সার, গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদের এমএ জলিল।

যুগ্ম-সম্পাদক পদে বিএনপি সমর্থিত মো নিজাম উদ্দিন, জাহিদুল ইসলাম পান্না, আওয়ামীলীগ সমর্থিত মো. আব্দুল খালেক মনা, আহাদ আলী খান, গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদের সালমা আক্তার ও পরেশ চন্দ্র দে। অর্থ সম্পাদক পদে বিএনপি সমর্থিত এসএম শওকত জাহাঙ্গির, আওয়ামীলীগ সমর্থিত নিয়াজ মাহামুদ খান, গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদের রতন কুমার দাস।

সদস্য পদে বিএনপি সমর্থিত শাহিন উদ্দিন মিয়া, আব্দুর রহমান চোকদার, মইনুল আবেদিন তুহিন, কাজী মাহমুদা, আওয়ামীলীগ সমর্থিত গোলাম ফারুক ডাবলু, এসএম ইসতিয়াক কবির রকি, রফিকুল ইসলাম ঝন্টু, সান্তনা রানি দত্ত। অপর দিকে সদস্য পদের জন্য গণতান্ত্রিক আইনজীবী পরিষদের এক জন্য প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবেন। তিনি হলেন আবুল কালাম আজাদ।

নির্বাচন উপ পরিষদের আহবায়ক এডভোকেট মজিবর রহমান-১ জানান, ১৩ ফেব্রুয়ারি জেলা আইনজীবী সমিতির পরিচালনা কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তার অংশ হিসেবে গতকাল মনোনয়ন পত্র বিক্রয় শুরু করা হয়েছে। যেহেতু প্যানেল নেই তাই যোগ্যতা অনুযায়ী যারা নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে পারবেন তাদের মধ্যে থেকে ৩১ জন আইনজীবী মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেছেন।

২৭ জানুয়ারী দুপুর ১ টা থেকে ৪ টা পর্যন্ত ক্রয়কৃত মনোনয়ন পত্র গ্রহন করা হবে। ২৮ জানুয়ারী প্রার্থীদের খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হবে। ২৯ জানুয়ারী বেলা ২ টা পর্যন্ত প্রার্থীতা প্রত্যাহারের সুযোগ দেয়া হবে। পরের দিন ৩০ জানুয়ারী দুপুর ২ টায় চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবে নির্বাচন কমিশন। ১৩ ফেব্রুয়ারী সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

মাঝে দুপুর ১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতী থাকবে। এই নির্বাচনে ৮৬৬ জন আইনজীবী নির্বাচনে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবে। তিনি আরো জানান, আইনজীবী সমিতির গঠনতন্ত্রের ২০ এর ক,খ,গ,ও ঘ ধারা সকল আইনজীবীকে মেনে চলতে হবে। যা কোনভাবে লঙ্ঘন করা যাবেনা। এছাড়াও গত বারের ন্যায় নির্বাচনে প্যানেল ভিত্তিক নির্বাচন করা যাবে না।

কোনরূপ পোষ্টার, প্রচার পত্র, প্লাকার্ড, মাইক্রোফোন মিছিল ও হাততালি দিয়ে স্লোগানের মাধ্যমে প্রচার করা যাবে না। কোন সদস্য কোনো প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালাতে হলে নির্বাচন উপ পরিষদের পুর্ব অনুমতি লাগবে।

ভোট কেন্দ্রে মোবাইল ফোন ও ক্যামেরা ব্যবহার করা যাবেনা। একজনের সাথে অন্য কেউ কেন্দ্রে ঢুকতেও পারবে না। এধরণের কোন অভিযোগ পেলে তাতক্ষনিক ভাবে নির্বাচন উপ পরিষদ তার ভোট বাতিল করতে পারবে। এবারের নির্বাচনে প্রার্থীর পক্ষে কোন এজেন্ট থাকবেনা। এছাড়াও প্যানেল ভিত্তিক কোন সভা করতে পারবে না বলেও তিনি উল্লেখ করেন।