লিঙ্গবৈষম্য নিয়ে সরব প্রিয়াঙ্কা!

রবিবার, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

বিনোদন ডেস্ক : আমি যখন সিনেমায় অভিনয় শুরু করি, তখন বলা হত যে, হিরোইন কে হবে সেটা হিরো ঠিক করবে! দেখে ভালো লাগে, সেই সময়টা অনেক পিছনে ফেলে এসেছে বলিউড।

নিজের কেরিয়ারের শুরুর সময়ের সঙ্গে তুলনা করে এভাবেই হিন্দি ছবির ইন্ডাস্ট্রিতে লিঙ্গ বৈষম্য নিয়ে সরব হলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। সম্প্রতি প্রিয়াঙ্কা টুইটে ঘোষণা করেছেন যে, অ্যাভেঞ্জার্স-খ্যাত রুশো ব্রাদার্সের পরিচালনায় রিচার্ড ম্যাডেনের সঙ্গে সিটাডেল নামে একটি ওয়েব সিরিজে কাজ করতে চলেছেন।

সেই প্রসঙ্গেই এক সাক্ষাৎকারে প্রিয়াঙ্কার মন্তব্য, ‘হিন্দি ছবিতে এখনো হয়তো কিছু হিরোর কথায় হিরোইন ঠিক হয়। তবে পরিস্থিতিটা যে অনেকটাই পাল্টে গিয়েছে, তার মূল কারণ দর্শক। কারণ এখন তারা ফিল্মের মুখ্য চরিত্র পুরুষ না মহিলা বিচার করেন না। ছবির কনটেন্ট বিচার করেন। এটাই বিরাট বদল।’ এই পরিবর্তনের জন্য বলিউডের বর্তমান অভিনেত্রীদেরও তুমুল প্রশংসা করেছেন প্রাক্তন মিস ওয়ার্ল্ড।

কেরিয়ারে একাধিক বার চ্যালেঞ্জিং রোল বেছে নিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা। সেটা ২০০৮ সালের ‘ফ্যাশন’ হোক, ২০১১ সালে ‘সাত খুন মাফ’ বা ২০১৪ সালের ‘মেরি কম’র বায়োপিক। প্রিয়াঙ্কার কথায়, ‘যখন ফ্যাশন ছবিটা করেছিলাম, প্রায় সবাই বলেছিল, এ রকম মহিলাকেন্দ্রিক সিনেমা অভিনেত্রীরা কেরিয়ারের শেষবেলায় অ্যাওয়ার্ড জেতার জন্য করে। ‘এতরাজ’ সিনেমায় খলনায়িকার চরিত্র করার সময় বলেছিল লোকে আমায় ‘ভ্যাম্প’ বলেই চিনবে। কেউ গাইড করার, শেখানোর ছিল না। আজ আমাদের কাছে দীপিকা পাড়ুকোন, আলিয়া ভাট, কঙ্গনা রানাউত, বিদ্যা বালানের মতো অভিনেত্রীরা রয়েছেন, যারা শুধু অন্যরকম গল্পে অভিনয় করছেন না, কাজের গুণে দর্শকদের সেটা দেখতে বাধ্যও করছেন।’

বলিউডে লিঙ্গ বৈষম্যের সমস্যা কমার পেছনে অভিনেত্রীদের ছবির প্রযোজনায় আসাও একটা বড় কারণ বলে মনে করছেন প্রিয়াঙ্কা। তার মতে, ‘এখন যখন তোমার পছন্দের গল্পগুলো কেউ সিনেমায় ধরে তুলতে চায় না, তখনই তুমি নিজে প্রোসিউসার হয়ে যেতে পারো। আমি আমেরিকায় সেটাই করছি।’ প্রিয়াঙ্কার স্বপ্ন, ‘আশা করব এমন একটা সময় আসবে যখন কোনো সিনেমাকে ‘নারীকেন্দ্রিক’ বলা বন্ধ হবে। অভিনেতা, পরিচালক, খেলোয়াড় এগুলোই হবে পরিচয়। সূত্র: এই সময়