একগুচ্ছ ইতিবাচক সিদ্ধান্তেই রেকর্ড গড়ল সূচক

রবিবার, জানুয়ারি ১৯, ২০২০

ঢাকা : অবশেষে সরকারের একগুচ্ছ ইতিবাচক সিদ্ধান্তেই ঘুরে দাঁড়িয়েছে পুঁজিবাজার। আজ ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স একদিনে ২৩২ পয়েন্ট বা ৫ শতাংশ বেড়ে রেকর্ড সৃষ্টি করেছে; যা সূচকটি চালু হওয়ার ৭ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। আজ ঢাকার বাজারে লেনদেনও বেড়েছে বড় ব্যবধানে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ডিএসইএক্স সূচক ২০১৩ সালে যাত্রা শুরু করে। তখন সূচকটির ভিত্তি পয়েন্ট ছিল ৪ হাজার ৫৬ পয়েন্ট। এরপরে গত ৭ বছরের মধ্যে আজ রোববার সূচকটির সর্বোচ্চ উত্থান হয়েছে। এর আগে ২০১৫ সালের ১০ মে সূচকটি ১৫৫ পয়েন্ট বেড়েছিল।

প্রসঙ্গত, গত এক বছরে পুঁজিবাজারে বড় ধস ঠেকানোর জন্য নীতি-নির্ধারক মহল, অর্থমন্ত্রণালয় থেকে নানা পদক্ষেপ নিলেও বাজার চাঙ্গা হয়নি। তবে গত ১৬ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সাথে বিএসইসির বৈঠকে পুঁজিবাজার চাঙ্গা করতে বেশকিছু ইতিবাচক দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়। এছাড়া বাজারে তারল্য সংকট কাটাতে সরকারী ৪ ব্যাংকের বিনিয়োগ এবং গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পদে প্রথম বাংলাদেশী হিসাবে ইয়াসির আজমানকে নিয়োগ বাজারে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। আর এসব কারণেই রোববার মূল্য সূচক রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসই প্রধান বা ডিএসইএক্স সূচক ২৩২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৩৮২ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৫৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৯৯৭ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ৮০ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৪৮৭ পয়েন্টে।

ডিএসইতে আজ ৪১১ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা গত কার্যদিবস থেকে ১৪৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকা বেশি। বৃহস্পতিবার লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২৬৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

আজ ডিএসইতে ৩৫৬টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৩৪৬টির, কমেছে ৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪টির।

অপরদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৬৭৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১৩ হাজার ২৭৭ পয়েন্টে। সিএসইতে টাকার অংকে ৪৩ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।