কি কারণে স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করবো? প্রশ্ন মঈন খানের

শনিবার, জানুয়ারি ১৮, ২০২০

ঢাকা : যে দেশের মানুষ স্বাধীনতা ভোগ করতে পারে না তারা স্বাধীনতার উদযাপনও করতে পারে না মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান। তিনি বলেছেন, ‘আজ স্বাধীনতার ৫০ বছর হয়েছে। যে দেশের (বাংলাদেশ) মানুষ স্বাধীনতা ভোগ করতে পারবে না, তাহলে কি কারণে আমরা স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করবো? আজকে আমাদের একটাই চাওয়া— বাংলাদেশের মানুষকে গণতন্ত্র দিতে হবে। গণতন্ত্র দিতে হলে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার একমাত্র উপায় হল সুষ্ঠ ভোট। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট করতে হবে, অন্যথায় বাংলার স্বাধীনতাকামী মানুষ কখনো ক্ষমা করবে না।’

শনিবার (১৮ জানুয়ারি) জিয়া নাগরিক ফোরাম (জিনাফ) আয়োজিত জিনাফ’র ২৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ‘ভোটাধিকার হরণের ষড়যন্ত্রমূলক ইভিএম বাতিল ও খালেদা জিয়ার মুক্তি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

জনগণের ভোট যারা চুরি করে, তারা দেশের কল্যাণ ও ভালো চায় না বলে মন্তব্য করে মঈন খান বলেন, ‘যারা ভোটের অধিকার চুরি করেছে তাদের মানুষ চায় না। যারা জোর করে ক্ষমতায় থাকতে চায়, দেশের মানুষের কল্যাণে নয় তাদের নিজেদের কল্যাণে, ব্যক্তি, দলের কল্যাণে।’

মঈন খান বলেন, ‘আমি স্পষ্ট ভাষায় বলে দিতে চাই— বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষকে যদি আপনারা দুটি অপশন দেন। একটি হচ্ছে ভোট অন্যটি ভাত, তাদের প্রশ্ন করুন— দুটি অধিকার একসঙ্গে দিতে পারবো না, যেকোনো একটি নিতে হবে। মানুষ তখন বলবে আমরা ভোটের অধিকার চাই। বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ ভাত নয়, ভোটের অধিকার চায়।’

আওয়ামী লীগের সাথে বিএনপির তুলনা হয় না মন্তব্য করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল আর আওয়ামী লীগ একটি একনায়কতন্ত্র দল। দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার নেই, স্বাধীনতা নেই। যেদেশে নির্বাচনের সুষ্ঠু হয় না সে দেশে কোন স্বাধীনতা থাকতে পারে না।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কে এ জামান এর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সহ-সভাপতি ইউনুস মেধা, তাঁতী দলের যুগ্ম-আহবায়ক ড. কাজী মনিরুজ্জামান মনির, কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।