১৬ দিনে সৌদি থেকে খালি হাতে ফিরলেন দেড় হাজার প্রবাসী

শুক্রবার, জানুয়ারি ১৭, ২০২০

ঢাকা : বছর শুরু হতে না হতেই মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব থেকে শ্রমিক ফেরা শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ১০৯ জন বাংলাদেশিকে ফিরত পাঠিয়েছে সৌদি সরকার।

এ নিয়ে এ বছরের ১৬ দিনে খালি হাতে এক হাজার ৬১০ জন বাংলাদেশি দেশে ফিরলেন। বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ২০ মিনিটে সৌদি এয়ারলাইন্সের এসভি ৮০৪ ফ্লাইটে দেশে ফেরেন এসব প্রবাসী।

শাহজালাল বিমানবন্দরে নেমে গণমাধ্যমকর্মীদের এসব প্রবাসীর অভিযোগ আকামা (ওয়ার্ক পারমিট) থাকা সত্ত্বেও তাদের ফেরত পাঠিয়েছে সৌদি প্রশাসন।

এমন অভিযোগ করে নোয়াখালীর আজিম হোসেন বলেন, মাত্র দুই মাস আগে সৌদি আরবে গিয়েছিলাম। পাসপোর্টে তিন মাসের ভিসা থাকা সত্ত্বেও বাজারে যাবার পথে পুলিশ আমাকে গ্রেফতার করে। এ সময় কফিলের (নিয়োগকর্তা) সঙ্গে পুলিশ কথা বলিয়ে দিয়ে কাজ হয়নি। তারা আমাকে দেশে পাঠিয়ে দিল।

আজিম হোসেনের মতো একই অভিযোগ করেছেন মুন্সিগঞ্জের রুহুল আমিন, কুমিল্লার ফিরোজ হোসেন ও মানিক, শরিয়তপুরের মিলন, যশোর জেলার মোসলেম উদ্দিন, বগুড়ার মেহেদি হাসান, গাজীপুরের রাজিব।
ফেরত আসা ১০৯ বাংলাদেশির বেশিরভাগেরই এমন অবস্থা বলে জানায় তারা।

দেশে ফেরা কর্মীদের অনেকের অভিযোগ, আকামা বানাতে টাকা দেয়া হলেও কফিল আকামা তৈরি করে দেননি। পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলে কফিল আর যোগাযোগ করছেন না এবং গ্রেফতারকৃত কর্মীদের দায়-দায়িত্ব নিচ্ছেন না। তাই দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে তাদের। বরাবরের মতো এবারও ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম থেকে জরুরি সহায়তায় এসব প্রবাসী ফেরত এসেছেন।

এসব বিষয়ে ব্র্যাক অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল হাসান জানান, গত বছর থেকেই নিঃস্ব অবস্থায় সৌদি প্রবাসীরা ফিরছেন। কয়েক মাস আগে গিয়েছিলেন এমন লোককেও পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। দূতাবাস ও সরকারকেও বিষয়গুলো খতিয়ে দেখতে হবে। জমি, ভিটা বিক্রি করে সৌদি গিয়ে এভাবে ফিরে এসে ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন এসব প্রবাসী।

প্রসঙ্গত, প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক থেকে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সনে ২৫ হাজার ৭৮৯ বাংলাদেশিকে সৌদি আরব থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। নতুন বছরের শুরুর ১৬ দিনে এক হাজার ৬১০ জন বাংলাদেশি ফিরলেন।