বরগুনায় মোবাইল ফোনে প্রেম, অতঃপর…

শুক্রবার, জানুয়ারি ১৭, ২০২০

বরগুনা: মোবাইল ফোনে প্রেম অতঃপর বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এক তরুণীকে নিপীড়নের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

থানায় মামলা না নেয়ায় বরগুনা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ধর্ষকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ওই তরুণী।

বৃহস্পতিবার ওই ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান মামলাটি গ্রহণ করে বরগুনা থানার ওসিকে এজাহার করার নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার আসামি বরগুনা সদর উপজেলার চরকগাছিয়া গ্রামের মৃত মজিদ ফকিরের ছেলে মো. ইসমাইল।

জানা গেছে, ওই তরুণীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে সম্পর্ক গড়ে ওঠে ইসমাইলের। ইসমাইল তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। রাজি হয় ওই তরুণী। কিছুদিন আগে ইসমাইল তার এক বন্ধুর বাসায় ওই তরুণীকে নিয়ে যায়।

ইসমাইলের বন্ধু কৌশলে বাসা থেকে বের হয়ে গেলে তরুণীকে ধর্ষণ করে ইসমাইল। ইসমাইল তাকে আশ্বস্ত করে, কিছুদিনের মধ্যেই তাদের বিয়ে হবে। তাই এই ঘটনা চেপে যেতে হবে। তরুণীও ধর্ষণের ঘটনা গোপন রাখে। ইসমাইলকে বিয়ের জন্য চাপ দিয়ে ব্যর্থ হয়ে মামলার হুমকি দেয়।

২৭ ডিসেম্বর ইসমাইল ওই তরুণীকে ফোনে জানায়, রাতে তোমার সঙ্গে বিয়ের কথা চূড়ান্ত করতে আসব। ইসমাইল রাত ৯টায় তরুণীকে ফোন করে তার বাবার বসত ঘরের বাইরে নামতে বলে। ইসমাইল পেছনের বাগানে নিয়ে আবারও ওই তরুণীকে ধর্ষণ করে।

ওই তরুণী বলেন, বরগুনা থানায় আমার মাকে নিয়ে মামলা করতে গেলে থানা মামলা নেয়নি। বরগুনা জেলা লিগ্যাল এইডের কাছে গেলে তারা ইসমাইলের সঙ্গে আপসের চেষ্টা করে। কিন্তু ফল হয়নি।

বরগুনা থানার ওসি আবির মোহাম্মদ হোসেন বলেন, এ ব্যাপারে কেউ মামলা করতে আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেব।