খাদ্যের অভাব, শব্দ দূষণ ও পাখি শিকারকে দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা

দুর্গাসাগরে অতিথি পাখির হাহাকার!

সোমবার, জানুয়ারি ৬, ২০২০

শীতের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে অতিথি পাখির আগমন ছিলো প্রকৃতির একটি স্বাভাবিক নিয়ম। কিন্তু গত এক যুগের ব্যবধানে বরিশালে আশংকাজনক হারে কমেছে অতিথি পাখির আগমন। চলতি মৌসুমে অতিথি পাখি আসেনি বললেই চলে।

এর কারণ হিসেবে জলবায়ু পরিবর্তন ও খাদ্যের অভাব, শব্দ দূষণ এবং পাখি শিকারকেই দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, নিরাপদ আশ্রয়স্থল না থাকার কারণেই অতিথি পাখিদের আগমন দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, শীতকালীন ঋতুতে ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশ বরফে ঢাকা পড়ে। তাই অতিথি পাখিগুলো বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে যায়। যে কারণে আমাদের দেশেও বালুহাঁস, বিদেশি পানকৌড়ি, গাঙ্গচিল, টিয়া, বক, শালিকসহ বিভিন্ন অতিথি পাখি শীত মৌসুমে এসে থাকে।

সূত্রমতে, যেসব অঞ্চলে হাওর-বাওর, বিল-ঝিল, দীঘি, বড় পুকুর, সমুদ্র-সৈকত থাকে সেসব অঞ্চল অতিথি পাখি তাদের আবাসস্থল হিসেবে বেছে নেয়। তবে বরিশালে পরিবেশের অভাবসহ বিভিন্ন কারণে এবার অতিথি পাখিদের তেমন দেখা মিলছে না। বরিশালে অতিথি পাখির আবাসস্থল দুর্গাসাগর, সারসী দীঘি, তালতলী, পদ্মা দীঘি, দপদপিয়া, লাহারহাটসহ বিভিন্নস্থান। এসবস্থানে অতিথি পাখির অবাধ বিচারণের জন্য নেই কোন সু-ব্যবস্থা। খাবার (মাছ) এর স্বল্পতার কারণে এবার শীতে কিছু পাখি আসলেও তা আবার চলে গেছে।

সূত্রে আরও জানা গেছে, বরিশালের অন্যতম পর্যটন এলাকা হচ্ছে দুর্গাসাগর। বরিশাল নগরী থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে বাবুগঞ্জ উপজেলার মাধবপাশা এলাকায় অবস্থিত এই দুর্গাসাগর। মাধবপাশা ছিল চন্দ্রদ্বীপ রাজ্যের সর্বশেষ রাজধানী। ১৭৮০ সালে চন্দ্রদ্বীপ রাজ্যের তৎকালীন রাজা শিব নারায়ণ তার স্ত্রী দুর্গা রাণীর নামে খনন করেন বিশাল জলাধার। যার নাম দেওয়া হয় দুর্গাসাগর। ১৯৯৬ সালে প্রায় ৪৬ একরের এই দীঘিকে দুর্গাসাগর দীঘি উন্নয়ন ও পাখির অভয়ারণ্য প্রকল্পের আওতায় নিয়ে পরিণত করা হয় অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে। যার তত্বাবধায়নে রয়েছে বরিশাল জেলা প্রশাসন।

স্থানীয়রা জানান, মাত্র এক দশক আগেও শীত মৌসুমে দুর্গাসাগর দীঘি মুখরিত থাকতো অতিথি পাখির কল কাকলিতে। কিন্তু ২০০৭ সালের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় সিডরের পর থেকেই দুর্গাসাগরে অতিথি পাখির আগমন কমে গেছে। স্থানীয়রা আরও জানান, জানুয়ারি মাসের ২/৩ তারিখে পাঁচ শতাধিক অতিথি পাখি ঝাঁক বেঁধে দুর্গাসাগরে নেমেছিলো। কিন্তু মাত্র এক থেকে দেড় ঘণ্টা পরই পাখিগুলো উড়ে চলে যায়। এরপর মাঝে মধ্যে ৪/৫টি করে পাখি আসলেও তা বেশিক্ষণ থাকছে না।

দুর্গাসাগর পারে ঘুরতে আসা কেএম শোয়েব জুয়েল বলেন, আমি ঢাকা থেকে বরিশালে ঘুরতে এসেছি। শুনেছি বরিশালের দুর্গাসাগর অনেক মনোরম পরিবেশ আর শীতে এখানে অতিথি পাখিরা আসে। তাই সন্তানদের নিয়ে এসেছি। কিন্তু এখানে অতিথি পাখি নেই বললেই চলে।

অপর পর্যটক শাহাদাত হোসেন বলেন, অনেক আগে একবার এখানে এসেছিলাম। তখন অতিথি পাখির সমারহ ছিলো। এখানের পরিবেশটাও ভালো। কিন্তু কয়েক বছরের ব্যবধানে পুনরায় এসেছি দুর্গাসাগর ভ্রমণে। এখানে মনোরম পরিবেশ ঠিকই আছে কিন্তু নেই অতিথি পাখি।

অতিথি পাখি না আসা প্রসঙ্গে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. হাসিনুর রহমান বলেন, এক দশক ধরেই দুর্গাসাগরসহ বরিশালের আশপাশে অতিথি পাখিদের আসা যাওয়া নেই বললেই চলে। এর প্রধান কারণ জলবায়ু পরিবর্তন। তিনি আরও বলেন, সাইব্রেরীয় এই অতিথি পাখি স্বাচ্ছন্দ্যে থাকার পরিবেশ না পাওয়ায় হয়তো এসেও চলে যাচ্ছে। আবার শব্দদূষণ ও খাদ্য সংকটও পাখিদের না আসার কারণ হতে পারে।

পরিবেশ অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় পরিচালকের কার্যালয়ের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা অতিথি পাখির আগমন কমে যাওয়া এবং আসলেও না থাকার কারণ হিসেবে জলবায়ু পরিবর্তন ও দূষণমুক্ত পরিবেশকে দায়ী করেছেন। এ ব্যাপারে গবেষণার মাধ্যমে এর সঠিক কারণ উদ্ঘাটন করা দরকার বলেও ওই কর্মকর্তা উল্লেখ করেন।