ভারতের নাগরিকত্ব আইন মুসলিমদের প্রতি বৈষম্যমূলক: জাতিসংঘ

শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধন আইনকে মুসলিমদের প্রতি বৈষম্যমূলক বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থা এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে ভারত সরকারকে আইন সংশোধনের আহ্বান জানিয়েছে।

সংস্থাটি বলেছে, এই আইনে মুসলিমদের অন্তর্ভুক্ত না করায় তা প্রকৃতিগতভাবে বৈষম্যমূলক হয়েছে। এছাড়া জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস জানিয়েছেন, এই আইনের ফলাফল কী দাঁড়া, তা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের এক খবরে এসব বলা হয়েছে।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় মানবাধিকার বিষয়ক জাতিসংঘের মুখপাত্র জেরেমি লরেন্স শুক্রবার এক ব্রিফিংয়ে বলেছেন, আমরা জানি যে, এই আইনের বৈধতা ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে। আমারা আশা করছি, মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক আইনে ভারতের যে দায়বদ্ধতা রয়েছে আদালত তা বিবেচনায় নিয়ে নাগরিকত্ব আইনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে।

জেরেমি লরেন্স জানান, এই আইন উল্লিখিত ছয় ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মতো মুসলিম শরণার্থীদের নিরপাত্তা নিশ্চিতের কথা বলে না। আইনের দৃষ্টিতে সমতা রক্ষায় ভারত সরকারের যে সাংবিধানিক দায়বদ্ধতা রয়েচে তার সঙ্গেও এই আইন সাংঘর্ষিক। ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইন সংশোধনের প্রস্তাব ১০ ডিসেম্বর ভারতীয় পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ লোকসভা ও পরে উচ্চকক্ষ রাজ্যসভাতে পাশ হয়। বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের স্বাক্ষরে তা আইনে পাশ হয়।

এ দিকে, নতুন আইন পাসের পর ভারতের প্রতি সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য তাদের নাগরিকদের ভ্রমণের ব্যাপারে সতর্ক করেছে।

এ ছাড়া ভারতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাসের পর এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছেই। আসামের পাশাপাশি দেশটির রাজধানী নয়াদিল্লি, মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলং, পাঞ্জাবের অমৃতসর ও গুজরাটের আহমেদাবাদে বিক্ষোভ হয়েছে। এর মধ্যে দিল্লি ও শিলংয়ে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়েছে। এ ছাড়া পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদে রেলস্টেশনে আগুন দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা।

আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানায়, শুক্রবার নয়াদিল্লিতে বিক্ষোভ করেন জামিয়া মিল্লিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এ সময় পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়েছে।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি জানায়, মেঘালয়ের শিলংয়ে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ ও লাঠিপেটা করেছে। মেঘালয়ের উইলিয়ামনগরে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সাংমার পথরোধ করেন বিক্ষোভকারীরা। রাজ্যজুড়ে বিক্ষোভের কারণে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের রবিবারের (১৫ ডিসেম্বর) শিলং এবং সোমবারের অরুণাচল সফর বাতিল করা হয়েছে।