ফেনীতে আ.লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১

সোমবার, ডিসেম্বর ৯, ২০১৯

ফেনী : ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে সিরাজুল ইসলাম নামে এক যুবলীগ কর্মী গুলিতে নিহত হয়েছেন। এ ঘট্নায় আরও তিনজন আহত হয়েছেন।

রবিবার (৮ ডিসেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার ঘোপাল ইউনিয়নের সমিতি বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

নিহত সিরাজুল ইসলাম (৩০) উপজেলার নিজকুঞ্জরা গ্রামের আব্দুল কাদেরের ছেলে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুলফিকারের অনুসারী বলে জানান স্থানীয়রা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঘোপাল ইউনিয়নের সমিতি বাজার সংলগ্ন এলাকা থেকে বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক মানিক ও ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার ছিদ্দিকের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এর জেরে রবিবার দুপুরে আজিজ গ্রুপের ৫/৬ জন সমিতি বাজারে সিরাজুল ইসলামের ওপর হামলা চালায় ও গুলি করে। এ সময় তার চিৎকারে জুলফিকার গ্রুপের লোকজন আসলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে হামলাকারীদের গুলিতে সিরাজুল, পারভেজ, জিহান ও শহীদ গুরুতর আহত হন।

পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ছাগলনাইয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক সিরাজুলকে মৃত ঘোষণা করেন। গুরুতর অবস্থায় দুজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা প্রায় এক ঘন্টা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক মানিক জানান, জুলফিকার ছিদ্দিক ও পারভেজের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। তিনি বার তার লোকজন এ ঘটনায় জড়িত নন।

ছাগলনাইয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেসবাহ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে কীভাবে হত্যাকাণ্ডের ঘট্না হয়েছে তা জানা যায়নি। তদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে।