দুর্গাপুরের মেয়র আব্দুস ছালামের বিরুদ্ধে গোপনে রোড টুল দেওয়ার অভিযোগ

রবিবার, ডিসেম্বর ৮, ২০১৯

সানাউল হক, নেত্রকোনা প্রতিনিধি : নেত্রকোনার দুর্গাপুর পৌরসভা কার্যালয়ের অধীনে নিয়মবর্হিভূতভাবে ইজারা আইন না মেনে কোন রকম নোটিশ ছাড়াই গোপনে রোড টুল দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে মেয়র আব্দুস ছালামের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় গত রোববার মো আব্দুস সাহিদ সরকার নামে এক ঠিকাদার জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

লিখিত অভিযোগ ও পৌর কাযালয় সূত্রে জানা গেছে, নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর পৌরসভার দুর্গাপুর-বিরিশিরি ও শিবগঞ্জ-দক্ষিণ ভবানীপুর সড়কে পণ্যবাহী যানবাহনের জন্য গত ৬ নভেম্বর পৌরসভার অধীনে রোড টুল ইজারার জন্য বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। ১ জানুয়ারি ২০২০ থেকে ৩১ ডিসেম্বর পযন্ত এক বছরের জন্য এই ইজারার সময়কাল।

এরপর তা বাতিল করে ১৩ নভেম্বর ও সর্বশেষ ২০ নভেম্বর পুনরায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে মেয়র আব্দুস ছালাম তা বাতিল করে গোপনে তাঁর পছন্দের এক ঠিকাদার অঞ্জন সরকারকে ৬৫ লাখ টাকায় এই ইজারা দেন।যা গত বছর ইজারামূল্য ছিল ১ কোটি ৭ লাখ টাকা। পৌরসভার ব্যবসায়ী ও ঠিকাদার ছিল আলাল উদ্দিন আলাল।

সাবেক ইজারাদার আলাল উদ্দিন জানান, গত বছর আমি এক কোটি সাত লাখ টাকায় ইজারা নিই। এবছরও ট্রেন্ডার নিতে সিডিউল জমা দিই। কিন্তু পৌরমেয়র রহস্য জনক কারণে তা বন্ধ করে দেন। পরে শুনেছি বৃহষ্পতিবার রাতে মেয়র গোপনে একজনকে ইজারা দিয়ে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঠিকাদার অঞ্জন সরকারের মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তবে নাম প্রকাশে একজন পৌর কর্মকর্তা জানান নিয়ম মেনে যথাযথ ভাবে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েই ইজারা দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে পৌর মেয়রের মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি। তবে নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক মঈনুল ইসলামের সাথে এ বিষয়ে কথা বললে তিনি জানান,বিষয়টি আমি অবহিত হয়েছি এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।