রোহিঙ্গাদের অধিকার বিষয়ক অফিস বন্ধের নির্দেশ বাংলাদেশের

শনিবার, ডিসেম্বর ৭, ২০১৯

ঢাকা : রোহিঙ্গাদের অধিকার বিষয়ক ‘আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের’ (এআরএসপিএইচ) প্রধান কার্যালয় বন্ধ করার নির্দেশে দিয়েছে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এর অফিস তালাবদ্ধ করে রাখার কথা বলা হয়েছে তাতে। আশ্রয় শিবিরে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের এই সংগঠনের নেতাদের প্রতি এমন নির্দেশ দিয়েছেন কর্মকর্তারা।

রোহিঙ্গাদের এক মুখপাত্র এমনটা দাবি করলেও তাদের অফিস বন্ধ করে দেয়ার কথা অস্বীকার করেছেন বাংলাদেশে শরণার্থী বিষয়ক কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার। তিনি বলেছেন, কর্তৃপক্ষ নির্মিত বহুমুখী কাজে ব্যবহারের উপযোগী কমিউনিটি সেন্টারে মিটিং করতে বলা হয়েছে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের নেতাদের। আমরা কোনো অফিস বন্ধ করিনি। তাই বলে আমরা এমন কোনো কিছু অনুমোদন করব না, যা শরণার্থী শিবিরের সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিকে প্রশ্নের মুখে ফেলে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন এএফপি।

এতে আরো বলা হয়, কক্সবাজারে আটকে পড়া রোহিঙ্গাদের কথা বলার মূল কণ্ঠ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিল এআরএসপিএইচ। দুই বছরেরও বেশি সময় আগে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতা থেকে বাঁচতে, পালিয়ে ঢলের মতো বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী। তাদেরকে আশ্রয় দেয় বাংলাদেশ। কিন্তু তাদের বিষয়ে অধৈর্য্য ক্রমশ বাড়ছে বাংলাদেশে। এমনই এক প্রেক্ষাপটের মধ্যে ওই নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে।

এআরএসপিএইচের মুখপাত্র সায়েদ উল্লাহ শুক্রবার গণমাধ্যমকে বলেছেন, ক্যাম্প ইনচার্জ আমাদের অফিস তালাবদ্ধ করে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। সমবেত হওয়ার আগে অনুমতি নিতে বলা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, এ কারণে তাদের গ্রুপের সবরকম কর্মকাণ্ড স্থগিত রয়েছে।

উল্লেখ্য, শিক্ষক থেকে অধিকারকর্মী হয়ে উঠা মোহিব উল্লাহ নেতৃত্ব দিচ্ছেন এআরএসপিএইচের। শরণার্থীদের গুরুত্বপূর্ণ নেতা ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের মিটিংগুলোতে তিনি হয়ে উঠেছেন মুখপাত্র। বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবির কুতুপালংয়ে বাঁশ ও তারপুলিন দিয়ে গড়ে তোলা তাদের অফিসে মাঝে মধ্যেই রোহিঙ্গা সম্প্রদায়কে নিয়ে মিটিং হয়।

কিন্তু এ বছর আগস্ট মাসে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতার দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিকে স্মরণ করে রাখার জন্য প্রায় দুই লাখ শরণার্থীকে নিয়ে র্যালির নেতৃত্ব দেন মোহিব উল্লাহ। তারপর থেকেই তিনি কড়াকড়ির আওতায় পড়েন। ওই বিশাল র্যালি আশ্রয়দাতা বাংলাদেশী স্থানীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। বাংলাদেশী স্থানীয় এসব সম্প্রদায় দুটি পাহাড়ি শহরে রোহিঙ্গাদের তুলনায় সংখ্যালঘুতে পরিণত হয়েছেন। ওই শহর দুটিতে গাদাগাদি করে তিন ডজন শিবিরে বসবাস করছেন রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গাদের ওই বিশাল র্যালি এবং একই মাসে প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়া ব্যর্থ হওয়ার পর শরণার্থীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ। ওই অঞ্চলে উচ্চ মাত্রার ইন্টারনেট সুবিধা বন্ধ করে দেয়া হয়। বড় বড় বসতির চারদিকে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণে নির্দেশ দেয়া হয় সেনাবাহিনীকে।

উল্লেখ্য, রাখাইনে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতা, গণহত্যার বিরুদ্ধে তথ্য প্রমাণ সংগ্রহের জন্য ২০১৭ সালের শেষের দিকে গঠন করা হয় এআরপিএসএইচ। ওদিকে ‘লাকডাউন’ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের এক নেতা। তিনি বলেন, এই অফিস হলো আমাদের সম্প্রদায়ের আশা ও আকাঙ্খার একটি প্রতীক। এটা বন্ধ করে দেয়া হবে আমাদের অধিকারের পক্ষে লড়াইয়ের ওপর মারাত্মক ক্ষতিকর।