বাংলাদেশে ঢুকছে শত শত ভারতীয়, কিছুই জানেন না পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৬, ২০১৯

ঢাকা: কথিত বাংলাদেশি আখ্যা দিয়ে সীমান্ত দিয়ে মানুষ ঢুকাচ্ছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বিএসএফ’ সদসরা। গত কয়েক দিনে অন্তত ৩-৪ শতাধিক মানুষ বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে, যাদেরকে গ্রেফতারও করেছে বিজিবি।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ পেলেও এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি জানিয়েছেন, তিনি কিছুই জানেন না, পত্র-পত্রিকায় দেখেছেন। তবে দেশে অবৈধ প্রবেশের সরকারি তথ্য তার জানা নেই।

মঙ্গলবার (২৬ নভেম্বর) রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে অনুষ্ঠিত দুই দিনব্যাপী ৩৩তম সিএসিসিআই সম্মেলনে অংশ নেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হোন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এনআরসিতে আতঙ্কিত হয়ে অনেকেই সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে আসছেন। বিষয়টি নিয়ে ভারত বা কলকাতার সঙ্গে আলোচনা করা হবে কি-না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এনআরসি আতঙ্ক হবে কেন? ভারত সরকার আমাদের বারবার আশ্বাস দিয়েছে যে, এনআরসি বিষয়ে বাংলাদেশে কোনো প্রভাব পড়বে না, আমরা তাদের এই ওয়াদা বিশ্বাস করি। পত্র-পত্রিকায় দেখছি যে লোক আসছে বা আতঙ্ক ছড়িয়েছে কিন্তু আসলেই আমি জানি না বিষয়টা কি।’

আব্দুল মোমেন বলেন, ‘সব দেশেই প্রতিবেশি রাষ্ট্রের সঙ্গে ছোটখাটো বিষয়ে দেন-দরবার লেগেই থাকে। বড় খবরটা হচ্ছে যে আমাদের দুদেশের মধ্যে বড় বড় যে সমস্যাগুলো ছিল সেগুলো আমরা আলোচনার টেবিলে সমাধান করে ফেলেছি। দক্ষ নেতৃত্বের মাধ্যমে আমাদের দুই দেশের মধ্যে যে আস্থার সম্পর্ক গড়ে উঠেছে তা বিশ্বের খুব কম দেশের মধ্যেই আছে। এই ছোটখাটো সমস্যাগুলো আমরা সমাধান করে ফেলব।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এখনও ভারতের প্রতি আশান্বিত। তার বক্তব্য, ‘এনআরসি নিয়ে আমরা ভারত সরকারের সঙ্গে একাধিকবার আলোচনা করেছি। আমরা ভারতের দেয়া কথায় আস্থা রাখতে চাই। তারা বলেছে যে এনআরসি প্রভাব বাংলাদেশের পড়বে না। কিন্তু এখন মিডিয়াতে খবর দেখছি যে, এনআরসি আতঙ্কে লোকজন সীমান্ত পাড়ি দিচ্ছে। ’

এনআরসি আতঙ্কে সীমান্ত পাড়ি দেয়া সংক্রান্ত সরকারি তথ্য না পেলে কোনও মন্তব্য করতে পারবেন না বলেও জানিয়ে দেন ড. এ কে আব্দুল মোমেন।