২৬ লক্ষ নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে সরকার: আমির খসরু

শুক্রবার, নভেম্বর ২২, ২০১৯

ঢাকা: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, একটি ব্যবসায়ী গোষ্ঠী সব সুযোগ সুবিধা নিচ্ছে, তারা হচ্ছে আওয়ামী ব্যবসায়ী গোষ্ঠী। এছাড়া বাংলাদেশে কোন মুক্ত বাজার অর্থনীতি চলছে না। একটি মুক্তবাজার অর্থনীতির মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী অর্থনীতিতে পরিণত হয়েছে। এছাড়া পেঁয়াজ এবং লবণ এর দামের ঊর্ধ্বগতি সেটা হচ্ছে আওয়ামী অর্থনীতির প্রতিফলন।

শুক্রবার (২২ নভেম্বর) জাতীয় দল আয়োজিত বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৫তম দিন উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

খসরু বলেন, বাংলাদেশের জনগণের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের ক্রয় ক্ষমতা ইতিমধ্যে কমে গেছে। আজ থেকে ১০ বছর আগে বাংলাদেশের মানুষের যে প্রকৃত আয় ছিল সেটা কমে গেছে। তার ওপরে দ্রব্য মূল্যের যে ঊর্ধ্বগতি সেটা মানুষের প্রকৃত আয়কে আরও কমিয়ে দিয়েছে। বিশেষ করে গরীব, মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত তাদের প্রকৃত আয় আরও কমে গেছে। সুতরাং তাদের জীবন যাত্রার যে মান সেটা আরও কমে যাচ্ছে। মানুষ ভয়ে কথা বলতে পারছে না, প্রতিবাদ করতে পারছে না, সংবাদপত্র লিখতে পারছে না, গণমাধ্যম দেখাতে পারছে না। একটা ভয়-ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করে তারা দেশটাকে নিয়ন্ত্রণ করছে।

সরকারেরর সমালোচনা করে তিনি বলেন, তারা দ্রব্যমূল্য কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে সম্ভব নয় তাদের পক্ষে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করা। কারণ যে দেশে আপনি ব্যাংক ডাকাতি বন্ধ করতে পারবেন না ব্যাংকগুলো নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না, আপনি শেয়ার বাজার নিয়ন্ত্রণ ঠিকভাবে চালাতে পারবেন না এটা নিয়ন্ত্রিতভাবে চলছেনা নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। আজকে বাংলাদেশ উন্নয়নের নামে যে লুটপাট হচ্ছে সেখানে কোনো নিয়ন্ত্রণ নাই ১০ হাজার কোটি টাকার প্রোজেক্ট ৫০ হাজার টাকায় রূপান্তরিত হচ্ছে।

বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলা দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে আটকে রাখা হয়েছে। অন্যায়ভাবে ২৬ লক্ষ বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। অন্যায়ভায়ে গুম হচ্ছে, খুন হচ্ছে। পুলিশের সদস্যরা দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মৃত্যুবরণ করছেন। যে দেশে অন্যায়ভাবে প্রতিনিয়ত এই কাজগুলো চলছে, সেই দেশে এগুলো কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে। বাংলাদেশের নাগরিকের নিরাপত্তা দেয়ার কথা সেটা তারা দিতে পারছেনা কিন্তু তারা দ্রব্যমূল্য কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে। যেখানে বছরের-পর-বছর ক্যাসিনো ব্যবসা চলছে তার কোনো নিয়ন্ত্রণ নাই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ নাই। কোন আইনের শাসন নেই যেখানে বিচারব্যবস্থা কোন কাজ করছে না।

খসরু বলেন, বিএনপির কাউকে মারার দরকার হবে না। যেই দলটি বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দল, যেই দলটি প্রতিযোগিতায় সব দলের থেকে এগিয়ে আছে। সেই দলটি কাউকে মেরে হত্যা করে রাজনীতি করার দরকার হবে না। যাদের জনপ্রিয়তার অভাব রয়েছে, যাদের জনগণের ওপর আস্থার অভাব রয়েছে, যারা নির্বাচনকে ভয় পায়। তারাই গুম খুন হত্যা মিথ্যা মামলা করে থাকে।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপি চেয়ারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ড. ওবায়দুল ইসলাম, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, নির্বাহী কমিটির সদস্য এ এন এম রহমাতুল্লাহ, তাঁতী দলের যুগ্ম-আহ্বায়ক ড.কাজী মনিরুজ্জামান মনির, সহ অনেকে।