বাঁশে ঝুলিয়ে যুবককে নির্যাতন, সালাম মেম্বার ধরা পড়লেন

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২১, ২০১৯

সিলেট : সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলায় বিচারের নামে হাত-পা বেঁধে ঝুলিয়ে যুবককে নির্যাতনের ঘটনায় জড়িত ইউপি সদস্যকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার দনাবাজার এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে পুলিশ।

আটক ইউপি সদস্য আব্দুস সালাম ওরফে ফকির মস্তান উপজেলার চারিগ্রামের মৃত মহিবুর রহমানের ছেলে। এর আগে সকাল থেকে তাকে আটক করতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও জকিগঞ্জ থানা পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালায়। এরই মধ্যে ইউপি সদস্যকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতার কারণে জকিগঞ্জ ও কানাইঘাটের আরও তিন ইউপি সদস্যকে আটক করা হয়। বুধবার (২০ নভেম্বর) রাতে অভিযান চালিয়ে আব্দুস সালামের স্ত্রীকে আটক করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে জকিগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর মো. আব্দুন নাসের বলেন, যুবককে নির্যাতনের ঘটনায় জড়িত ইউপি সদস্য আব্দুস সালামকে আটক করা হয়েছে। এর আগে আরও তিন ইউপি সদস্য ও আব্দুস সালামের স্ত্রীকে আটক করা হয়েছে। এ নিয়ে পাঁচজনকে আটক করা হলো।

জকিগঞ্জ উপজেলার ৩নং কাজলসার ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আব্দুস সালাম একই ইউনিয়নের বড়বন্দ গ্রামের মৃত সফর আলীর ছেলে গিয়াস উদ্দিনকে বাঁশের সঙ্গে হাত-পা বেঁধে ঝুলিয়ে নির্যাতন করেন। ওই যুবককে নির্যাতনের ভিডিওটি বুধবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভিডিওটি ভাইরাল হলে সর্বত্র ক্ষোভ ও নিন্দার ঝড় ওঠে। ইউপি সদস্য আব্দুস সালামকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য সর্বমহলে দাবি ওঠে।

২৫ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে দেখা যায়, টুপি মাথায় ৫০ বছর বয়সী এক ব্যক্তি ৩৪-৩৫ বছর বয়সী এক যুবককে লাঠি দিয়ে পেটাচ্ছেন। বাড়ির উঠানে গোল হয়ে এ দৃশ্য দেখছেন বেশ কয়েকজন। নির্যাতনের শিকার ওই যুবক চিৎকার করে কাঁদছেন আর বলছেন ভাই ছেড়ে দেন আর মাইরেন না আমি মরে যাব। কিন্তু নির্যাতনকারী থামছেন না।