দ্রুত বুড়ো হওয়া কমায় যে ৫ খাদ্য

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২১, ২০১৯

লাইফস্টাইল ডেস্ক : বুড়ো হতে হবে সবাইকেই। এটা একটা প্রকৃতির নিয়ম। কিন্তু তাই বলে খুব দ্রুত কেউ বুড়ো হতে চান না। আমাদের শরীরের বয়স হয়েছে মনে হয় তখন, যখন শরীর ঠিক মতো কাজ করেনা। দেহে বল পাওয়া যায়না। তাই নির্দিষ্ট কিছু খাবার আছে যা আপনাকে দ্রুত বুড়ো হওয়া থেকে রেহায় দেবে। কারণ এ খাবারগুলি আপনাকে সুস্থ্য জীবনধারার পাশাপাশি দৈনন্দিন কাজে সক্রিয়তা এনে দেবে।

যখন মানুষের কর্মক্ষমতা লোপ পায়, স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস ভেঙ্গে পড়তে থাকে তখনই বোঝা যায় আস্তে আস্তে সে অচল হয়ে যাচ্ছে। এসবের কারণ দেহের অভ্যন্তরীণ নানা সমস্যা। তাই দেহের অভ্যন্তরীণ সমস্যাগুলোকে দূর করতে সহয়তা করে পাঁচটি সুপার ফুড। এসব খাবারগুলো অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহের সঙ্গে একত্র হয়ে অনেক বয়স সংক্রান্ত রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে-

১. অলিভ ওয়েল : এটা MUFAs (মোনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি) ও ওমেগা -3 এর একটি ভাল উৎস হলো অলিভ অয়েল। যা পরিপাক প্রক্রিয়ায়-সহায়ক ভূমিকা রাখে। এছাড়া গলস্টোন ও আলসার প্রতিরোধের পাশাপাশি-পুষ্টির যোগান দেয়। এন্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান থাকায় কাজ করে ক্যান্সার প্রতিরোধক হিসাবে।oliv

২. ডার্ক চকোলেট : এই চকোলেটে এমন উপাদান আছে; যা রক্ত সঞ্চালনে সাহায্য করে৷ রক্ত জমাট বাঁধতে দেয় না, ফলে হার্টে ব্লকের সম্ভাবনা কমে৷ ডার্ক চকোলেটের ক্যাফিন মস্তিষ্কে চনমনে ভাব আনে৷ এতে থাকে ফেনিলেথিল্যামাইন (পিইএ)৷ মানুষ যখন প্রেমে পড়ে তখন মস্তিষ্কে এনড্রোফিনস ক্ষরণ হয়৷ এই পিইএ মস্তিষ্ককে এনড্রোফিনস নিঃসরণে সাহায্য করে৷ যার ফলে মানুষের মধ্যে খুশির অনুভূতি হয়৷ শুধু তাই নয়, ডার্ক চকোলেটে রয়েছে প্রচুর ফ্ল্যাভোনয়েডস; যা শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক৷ তাছাড়াও ডার্ক চকোলেট কয়েক ধরনের ক্যানসারের সম্ভাবনাকে কমিয়ে দেয়৷ ব্লাড সুগার কমাতেও এর অবদান রয়েছে। বিশেষত টাইপ টু ব্লাড সুগার কমাতে উপযোগী ডার্কচকোলেট৷

৩. ব্রকোলি : এতে আছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ভিটামিন সি এবং খনিজ পদার্থ। আরো আছে শক্তিশালী অ্যান্টিকার্সিনোজেনিক অর্থাৎ ক্যান্সার প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য। এটি শরীরে ক্যান্সারের কোষ প্রতিরোধ করতে সক্ষম। ব্রকোলি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ব্রকোলিতে সালফোরাফেন নামে এক প্রকার সালফার আছে। যে সব ধ্বংসাত্মক এনজাইম তরুণাস্থির ক্ষতি করে তা ধ্বংস করে থাকে।

ফলে ব্রকোলি বাত রোগ প্রতিরোধ করে এটি। কিডনির সুস্থতায়ও এটি ভালো কাজ করে। ব্রকোলিতে রয়েছে প্রচুর পাচক আঁশ, যা খারাপ ধরনের কোলেস্টেরল শরীর থেকে বের করে। ব্রকোলি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ একটি সবজি, যা শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট তৈরি করে থাকে। এছাড়া এতে রয়েছে ক্যারোটিনয়েড লুটেনিন ও বিটা ক্যারোটিনসহ আরো কিছু শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট; যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ব্রকোলিতে থাকা উপাদানগুলো হৃৎপিণ্ডের রক্তনালির সুরক্ষা দেয়।

৪. রেড ওয়াইন (লাল মদ): গবেষণা দেখা গেছে প্রতি রাতে এক গ্লাস রেড ওয়াইন শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে, রক্ষা করে হার্টকেও। যারা ডিনারের পর ১৫০ মিলিলিটার ওয়াইন পান করেন তাদের শরীরে কোলেস্টেরল অনেক বেশি নিয়ন্ত্রণে থাকে। তবে দিনে এক বা দু’গ্লাসের বেশি ওয়াইন শরীরে অত্যন্ত ক্ষতিকর। রেড ওয়াইন টাইপ টু ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অত্যন্ত উপকারী। হেলদি ডায়েটের অংশ এই পানীয় কার্ডিওমেটাবোলিক রিস্ক কমিয়ে দেয়।

৫. ইয়োগার্ট : প্রোটিন ও ক্যালসিয়ামের একটি বড় উৎস হল ইয়োগার্ট। ইয়োগার্ট শরীরের ফ্যাটকেও কমাতে সাহায্য করে। এ খাবারটি পেশী ও হাড়ের ক্ষয়রোধ করতে সাহায্য করে। এছাড়াও মসৃণ পরিপাকতন্ত্রের জন্য প্রয়োজন ব্যাকটেরিয়া। কারণ এই ব্যাকটেরিয়া আমাদের টক্সিন থেকে পরিত্রাণ দেয়।