কিশোরী মেয়েকে ৭ লাখ টাকা বিক্রি করলেন বাবা!

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কিশোরী মেয়েকে সাত লাখ টাকায় বিক্রি করে দিয়েছিলেন এক পাষণ্ড বাবা! কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি।

পুলিশ ওই কিশোরীর বাবা, ক্রেতা ও দালালকে গ্রেফতার করেছিল। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে।

আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাঁচ মাস পর ওই কিশোরীকে উদ্ধারের পর জানা যায় সেই চার মাসের অন্তঃসত্বা। হায়দারাবাদে ওই কিশোরীকে উদ্ধারের সময় গ্রেফতার হয়েছে সানওয়ালার ছেলে। কিশোরীকে তার মায়ের হাতে তুলে দিয়েছে পুলিশ।

বারমেঢের সিওয়ান থানার পুলিশ সূত্রে খবর, মূলত ওই কিশোরীর কাকার তৎপরতাতেই ওই কিশোরীকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। কারণ তিনিই প্রথম সন্দেহ করে থানায় এফআইআর দায়ের করেন।

সেই এফআইআর-এর ভিত্তিতেই কিশোরীর বাবা-সহ দুজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। কিন্তু তার পরেও কিশোরীকে পুলিশ খুঁজে না পাওয়ায় আদালতের দ্বারস্থ হন কিশোরীর কাকা। আদালতের নির্দেশেই শেষ পর্যন্ত কিশোরীকে উদ্ধার তৎপর হয় পুলিশ।

তাকে জিজ্ঞাসা করতে তিনি বলেন, মেয়েকে মামার বাড়িতে রেখে এসেছেন। এর পর ২৬ জুন কিশোরীর পরিবারের লোকজন সিওয়ানে গিয়ে জানতে পারেন, মেয়ে মামার বাড়িতে নেই। তখন বাবাকে চেপে ধরলে তিনি বলেন, রাস্তায় মেয়েকে অপহরণ করেছে দুস্কুতকারীরা। তার পরেই ওই কিশোরীর কাকা থানায় এফআইআর দায়ের করেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ জুন স্থানীয় গোপা রাম মালি নামে এক ব্যক্তি কিশোরীর বাবার কাছে সম্ভ্রান্ত পরিবারে কিশোরীর বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আসে। গোপার কথামতোই ওই পরিবারে সম্বন্ধ পাকা করতে মেয়েকে নিয়ে সিওয়ানে যান কিশোরীর বাবা। কিন্তু তিনি ফিরে আসেন একাই।