ইসরাইলি হামলায় গাজা পরিস্থিতি ভয়াবহ, নিহত আরও ৮

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিমান হামলায় আরও ৮ ফিলিস্তিনি শহীদ হয়েছেন। এ নিয়ে গত দুদিনে গাজার গাজার ১৮ ফিলিস্তিনি শহীদ হলেন যার মধ্যে ইসলামি জিহাদ আন্দোলনের দুজন শীর্ষ পর্যায়ের কমান্ডার রয়েছে।

জিহাদ আন্দোলনের সশস্ত্র শাখা আল-কুদস ব্রিগেড বুধবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ইহুদিবাদী ইসরাইলের বিমান হামলায় খালিদ মাবাজ নামে ৩৮ বছর বয়সী আরও একজন কামান্ডার শহীদ হয়েছেন। ইহুদিবাদী ইসরাইলের সেনাবাহিনী বলেছে, ইসরাইলের বিরুদ্ধে রকেট উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি নেয়ার সময় মাভাজের উপর হামলা চালানো হয়।

এর একদিন আগে ইহুদিবাদী সেনাদের বিমান হামলায় জিহাদ আন্দোলনের শীর্ষ পর্যায়ের কমান্ডার বাহা আবু আল-আতা ও তার স্ত্রী শহীদ হন। গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইসরাইলের দুদিনের হামলায় ৪৫ জন আহত হয়েছেন যার মধ্যে ২৩টি শিশু রয়েছে।

ইহুদিদের হামলার জবাবে জিহাদ আন্দোলন এ পর্যন্ত গাজা উপত্যকা থেকে ২০০’র বেশি ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়েছে। ইসরাইলের জাতীয় জরুরি বিভাগ জানিয়েছে, এ পর্যন্ত তারা ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় আহত ৪৬ জনকে চিকিৎসা দিয়েছে। ইসলামি জিহাদ আন্দোলনের একজন মুখপাত্র ইসরাইলকে হুঁশিয়ারি উচ্চরণ করে বলেছেন, তেল আবিব যুদ্ধ শুরু করলেও যুদ্ধ শেষ করার ক্ষমতা তাদের হাতে থাকবে না এবং চলমান সংঘাতের সম্পূর্ণ দায়-দায়িত্ব ইসরাইলকে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, তেল আবির যুদ্ধ শুরু করলেও যুদ্ধ শেষ করার ক্ষমতা তাদের হাতে থাকবে না এবং চলমান সংঘাতের সম্পূর্ণ দায়-দায়িত্ব ইসরাইলকে বহন করতে হবে।

এদিকে, ইহুদিবাদী ইসরাইল এবং গাজার মধ্যকার সংঘর্ষের পেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কূটনৈতিক উদ্যোগ শুরু হয়েছে। দু’পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতির জন্য মিশর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। অন্যদিকে ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা বা ওআইসি, আরব লীগ এবং জর্দান ইসরাইলি হামলার নিন্দা করেছে। লেবাননের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহও ইসরাইলি হামলার সমালোচনা করেছে। সংগঠনটি ফিলিস্তিনিদের যেকোনো সংগ্রামের প্রতি নিজেদের সমর্থনের কথা ব্যক্ত করেছে।