জুনের মধ্যেই সারাদেশে শতভাগ বিদ্যুৎ

সোমবার, নভেম্বর ১১, ২০১৯

ঢাকা : বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, আগামী বছরের জুনের মধ্যে সারাদেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন করা সম্ভব হবে। সোমবার জাতীয় সংসদের অধিবেশনে মন্ত্রীদের জন্য প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ অভিযোগ করেন, নিজেদের দোষ অন্যের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা হয়। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বালিশ কাণ্ড, হাসপাতালের পর্দা কেনা, ক্যাসিনো উৎসব সবকিছু বিএনপির ওপর চাপানোর চেষ্টা হয়। পরে বিদ্যুতের ভোল্টেজ সমস্যা সমাধানে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হবে কি-না তিনি জানতে চান।

উত্তরে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমি কাউকে দোষারোপ করছি না। আমি কিছু তথ্য দিচ্ছি মাত্র। শেখ হাসিনা সরকার ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার আগে দেশে গ্যাস ছিল, কিন্তু এটা ব্যবহারের কোনো পরিকল্পনা ছিল না। ওই সময় সরকার চিন্তাও করেনি যে গ্যাস দিয়ে শিল্প করা যায়, পাওয়ার প্ল্যান্ট করা যায়। ফলে ওই বিদ্যুৎ উৎপাদনও হয়নি। শেখ হাসিনা সরকার আসার পর পরিকল্পনা করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয়েছে। আমরা এমন পর্যায়ে চলে গেছি, আগামী জুনের মধ্যে সারাদেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন করব। আমরা বিদ্যুতের মাস্টারপ্ল্যান করেছি। গ্যাসের মাস্টারপ্ল্যান করেছি। তবে আমরা এখনও অনেক জায়গায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দিতে পারিনি। আগামী দুই-তিন বছরের মধ্যে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দিতে পারব। যদিও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দিতে দক্ষিণ কোরিয়ার ৫০ বছর লেগেছে। আমাদের সেটা লাগবে না।

‘এছাড়া উনি (হারুন) যে বলেছেন, উনার বাসায় লো ভোল্টেজ, এ কথাটা ঠিক নয়। রাজধানীর কোথাও ভোল্টেজ ওঠা-নামা করে না। বরং আজকেও আমাদের পাঁচ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ অতিরিক্ত আছে। ভোল্টেজ ওঠা-নামার সমস্যা থাকলে সেটা উনার বাসার লাইনে কোনো সমস্যা থাকতে পারে।’