ডেথ ভ্যালির চলমান পাথর, যা এক অজানা রহস্য

রবিবার, নভেম্বর ৩, ২০১৯

ঢাকা : বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে সিলেট, চট্টগ্রাম ও পার্বত্য অঞ্চলের বেশকিছু জায়গায় বড় বড় পাথর বিদ্যমান। সেগুলো বেশিরভাগ এক জায়গাতেই থাকে। কিছু কিছু বিশালাকৃতির পাথর শত শত বছর ধরে রয়েছে একই জায়গায়। তবে সিলেটের জাফলং, বিছানাকান্দি কিংবা বান্দরবান বা সীতাকুন্ড এসব অঞ্চলের ছোট বা মাঝারি আকারের পাথর পানির স্রোতের সাথে ভেসে যায় একজায়গা থেকে অন্যজায়গায়।

যা খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু শুকনো বা মরুভূমির মধ্যে যদি পাথর চলাচল করে তাহলে কি ব্যাপারটা স্বাভাবিক মনে হবে? আপনি তিনদিন আগে একটি পাথর এক জায়গায় দেখে গেলেন কিন্তু তিনদিন পরে এসে আরেক জায়গায় দেখলেন এবং সেটি চলাচলের ছাপও মরুভূমির বালিতে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে তাহলে কি ব্যাপারটা একটু অস্বাভাবিক মনে হবে না? এমনই এক অজানা রহস্য ক্যালিফোর্নিয়ার ডেথ ভ্যালির চলমান পাথর।

ডেথ ভ্যালি উপত্যকার রেসট্র্যাক প্লায়া নামক জায়গাটির এই রহস্যময় পাথর যেন প্রকৃতির এক বিস্ময়। জনমানবহীন এক বৈচিত্র্যময় জায়গা এটি। সচরাচর কোনো প্রাণীর দেখা মেলে না সেখানে। অবিশ্বাস্য হলেও, এই উপত্যকায় থাকা রহস্যময় পাথরগুলো কোনো এক অজানা কারণে নিজের অবস্থান পরিবর্তন করে বয়ে চলে। চলমান পাথর নামে পরিচিত এই পাথরগুলোকে কেউ নিজের চোখে চলতে যা দেখলেও তাদের চলাচলের অস্তিত্ব দেখা যায়। পূর্বের দিন তারা যেখানে অবস্থান করে পরেরদিন তার থেকে বেশ দূরের অবস্থানে তাদের খোঁজ মেলে। চলার পথে এরা বালুর গায়ে যে ছাপ ফেলে তা থেকেই এদের অবস্থান পরিবর্তনের ব্যাপারটি নিশ্চিত হওয়া যায়। সবচেয়ে মজার দৃশ্য দেখা যায় ডেথ ভ্যালি ন্যাশনাল পার্কের রেসট্র‍্যাক প্লায়াতে। সেখানের চিত্র দেখলে মনে হবে পাথরগুলো যেন রেস প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে। আর এই বিরল রেসের কারণেই ডেথ ভ্যালি ন্যাশনাল পার্কের এই এলাকাটির নামকরণ করা হয়েছে রেসট্র‍্যাক।

হয়ত ভাবছেন মানুষ বা অন্য কোনো প্রাণী এসের অবস্থান পরিবর্তন করাতে পারে। কিন্তু না, আশেপাশের মাটিতে তাদের কোনো পদচিহ্নের পাওয়া যায় না। সর্বপ্রথম ১৯৪৮ সালে বিশেষজ্ঞদের নজরে এই স্থান পরিবর্তনের বিষয়টি ধরা পড়ে। কিছু গবেষক মনে করেন, মাটি কর্দমাক্ত থাকা এবং বরফ পড়ে পিচ্ছিল হওয়ার কারণে বাতাসের ধাক্কা লাগে পাথরগুলোর গায়ে। আর তাতেই স্থান পরিবর্তন করে সেগুলো। শেষ অব্দি অবশ্য এই যুক্তিও গ্রহণযোগ্যতা পায়নি। কারণ গ্রীষ্মকালে যখন মাটি একেবারে শুকনো থাকে তখনো এই পাথরগুলো স্থান পরিবর্তন করে। আর এরা এক রাস্তায় যে চলে তাও না বরং প্রতিটি পাথরের চলার পথ সম্পূর্ণ ভিন্ন ও আলাদা।

১৯৫৫ সালে এম স্ট্যানলী বন্যার পর সৃষ্ট বরফকে এই অদ্ভুত আচরণের জন্য দায়ী করেন। এই মতবাদকে ‘আইস শিট’ মতবাদ বলে গণ্য করা হয়। কিন্তু পাথরের চলার পথে বক্রতা থাকায় এই তত্ত্বও বাতিল হয়ে যায়। এরপর ১৯৭৬ সালে রবার্ট শার্প ও ডুই ক্যারে এই চলাচলের জন্য দায়ী করেন বছরের বিভিন্ন সময়ে তীব্র বাতাসের গতিবেগকে। কিন্তু ১৯৯৫ সালে হ্যাম্পশায়ার কলেজের ভুত্বাত্তিকগণ শার্প ক্যারের মতামতকে বানচাল করে দিয়ে আইস শিট মতবাদকে গ্রহণ করেন।

কিন্তু দুটো মতামতই বাতিল হয়ে যায় যখন দেখা যায় একই জায়গায় পাথরগুলো পাশাপাশি নিজেদের অতিক্রম করতে থাকে। কারণ বাতাস বা আইসশিট যাই থাকুক পাথরগুলো অন্তত একদিকে চলবে। কিন্তু বাস্তবে যা ঘটে তা দুটো মতবাদকে তুড়িতে উড়িয়ে দেয়।আধুনিক স্যাটেলাইট ইমেজের মাধ্যমে রহস্যময় পাথরগুলোর স্থান পরিবর্তনের প্রমাণ ঠিকই মেলে কিন্তু তার কারণ আজও জানা যায়নি। হয়ত প্রকৃতি কিছু রহস্য রাখতেই ভালোবাসে।