সুশাসন প্রতিষ্ঠায় চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

শনিবার, অক্টোবর ১৯, ২০১৯

ঢাকা : দেশের দুর্নীতি বন্ধে ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় প্রধানমন্ত্রী কতগুলো বিষয়ের উপর জোর দিয়েছেন জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, আমরা জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ দমন করেছি। উন্নত বাংলাদেশ গড়তে দুর্নীতি সন্ত্রাসবাদ এবং জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে। যাতে কেউ ভবিষ্যতে দুর্নীতি, সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদে জড়াতে সাহস না পায়। যেখানেই অনিয়ম হবে, এখানে দুর্নীতি হবে; যেখানে আইন অমান্য হবে; সেখানেই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

শনিবার (১৯ অক্টোবর) দুপুরে বাংলাদেশ ফিল্ম ডেভলপমেন্ট করপরেশনে (এফডিসি) আয়োজিত ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট- ‘সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার এগিয়ে চলছে’ শীর্ষক ছায়া সংসদ বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপনারা দেখছেন- আমাদের প্রধানমন্ত্রী টেন্ডারবাজি, অনিয়মকারী কাউকে ছাড় দিচ্ছেন না। আমরা অবশ্যই এ টেন্ডারবাজ, দুর্নীতিবাজ এবং অনিয়মকারীদেরকে কন্ট্রোলে নিয়ে আসব। আমাদের প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস তিনি দূর করবেন। তিনি কিন্তু তাই করেছেন। দেশের মানুষ এখন জঙ্গিবাদকে আশ্রয় প্রশ্রয় দেয় না। তাই জনগণকে সঙ্গে নিয়েই জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন। আমরা সেটি বাস্তবায়নে কাজ করছি। তাই আমরা নতুন প্রজন্মের কাছে আহ্বান রাখব তারা যেন এই কাজটি (মাদক গ্রহণ) না করে। আমরা চাইনা আমাদের নতুন প্রজন্ম একটি ভুলের মধ্য দিয়ে হারিয়ে না যায়। আমরা চাই আমরা যে নতুন বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখি সেটি যেন তরুণ প্রজন্ম বাস্তবায়ন করতে পারে।

সুশাসনের কারণে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ২০০৮ আমরা যখন নির্বাচনের মাধ্যমে সরকারের ক্ষমতায় আসি তখন দেশে পূজামণ্ডপ ছিল ৯ হাজার বা ১০ হাজারের মতো। বর্তমানে সে সংখ্যা ৩২ হাজারের কাছাকাছি। শুধু পূজামণ্ডপ নয়, দেশে এমন কোনো জেলা নাই যেখানে বৌদ্ধ ধর্মের কোনো প্যাগোডা নেই। ঠিক সেভাবেই সব ধর্মের প্রতিনিধিরা নির্বিঘ্নে এ বাংলাদেশে থাকছেন। কে মুসলিম, কে হিন্দু, কে বৌদ্ধ, কে খ্রিষ্টান, কে পাহাড়ি, কে নৃ-গোষ্ঠী আমরা তা দেখছি না। আমাদের কাছে সবাই বাঙ্গালী। সবাই মিলেমিশে দেশকে এগিয়ে নিতে চায়।

আবরার হত্যার ঘটনায় অতি দ্রুত চার্জশিট দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আবরার হত্যার ঘটনা একটা দুঃখজনক ঘটনা। এটা তে আমরা বিস্মিত হয়েছি। মেধাবী ছাত্র না হলে বুয়েটে কেউ চান্স পায় না। সেই মেধাবী ছাত্র গুলো এভাবে খুন করল। তাদের মত মেধাবীদের মস্তিষ্ক এতটা বিকৃত হবে এটা আমাদের ধারণাই ছিল না। আমরা সত্যিই দুঃখিত। তবে আমরা শুধু দুঃখ প্রকাশ করে থেমে থাকেনি। আমরা সঙ্গে সঙ্গে সেই অপরাধীদের ধরেছি। সেই সঙ্গে নির্দেশ দিয়েছি এ ঘটনায় অতিদ্রুত যাতে নির্ভুল একটা চার্জশিট প্রস্তুত করা হয় এবং অতি দ্রুত যেন এ ঘটনায় ন্যায্য বিচার পায় আমরা সে আশা করছি। ইতোমধ্যে সে প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, আয়োজক সংগঠন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। তিনি বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সুশাসন প্রতিষ্ঠায় লক্ষ্যে শুদ্ধি অভিযানের মাধ্যমে জনগণের মধ্যে যে আশা জাগিয়েছেন তা অব্যাহত রাখতে হবে। আমরা এই শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানাই।

তিনি বলেন, দুর্নীতির সাথে জড়িত সরকারি আমলা, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ীসহ সকল মহাদুর্নীতিবাজদের তালিকা গণমাধ্যমে প্রকাশ করে জনগণের সম্মুখে তাদের মুখোশ উন্মোচিত করতে পারলে ভবিষ্যতে হয়তো আর কেউ এ ধরনের কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত হওয়ার সাহস পাবে না।