দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যানসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা

শুক্রবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৯

সানাউল হক,’ নেত্রকোনা প্রতিনিধি : নেত্রকোনার দুর্গাপুরে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে উপজেলা নবীন লীগের সভাপতি কাওসার তালুকদারকে (২৪) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় দুর্গাপুর থানায় হত্যা মামলা হয়েছে।

নিহতের ভাই স্বপন তালুকদার বাদী হয়ে জেলা বিএনপির সহসভাপতি, দুর্গাপুর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও চন্ডিগড় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ইমাম হাসান আবু চান, তার ছেলে জুলহাস মিয়া ও নাতি পরশ,দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান সাদ্দাম হোসেন আকঞ্জীসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৪-৫জনের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার দুর্গাপুর থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

এ ঘটনার প্রতিবাদে ও হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে বৃহস্পতিবার উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায় উজেলা সদরে বিএনপি সমর্থিত লোকজনের বাসায় ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। এ নিয়ে উপজেলা সদরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, জেলার দুর্গাপুরের বাকলজোড়া ইউনিয়নের গুজিরকোনা গ্রামের আলাল উদ্দিন তালুকদারের ছেলে উপজেলা নবীন লীগের সভাপতি কাওসার তালুকদারের সাথে বেশ কিছুদিন ধরে একই উপজেলার চন্ডিগড় ইউনিয়নের মাঝিয়াইল গ্রামের মঞ্জুরুল হকের ছেলে সুসং ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রদলের যুগ্নসাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান সাহসের বিরোধ চলছিল। এরই জের ধরে মঙ্গলবার মধ্যরাতে কয়েক দুর্বৃত্ত কাওসার তালুকদারকে কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই স্বপন তালুকদার বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার ১৭জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৪-৫জনকে আসামি করে দুর্গাপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। নিহতের লাশ ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে বুধবার রাতে উপজেলার গুজিরকোনা গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়।

হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার সকল স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। শিক্ষার্থীরা উপজেলা চেয়ারম্যান ঝুমা তালুদারের কাছে খুনিদের গ্রেফতার ও সুষ্ঠু বিচারের দাবী জানায়। বিকেলে দুর্গাপুর শহীদ মিনারে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলাউদ্দিন আল আজাদ, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জান্নাতুল ফেরদৌস আরা ঝুমা তালুকদার, জালাল হত্যার প্রতিবাদ পরিষদের আহ্বায়ক শাহ কুতুব উদ্দিন তালুকদার রুয়েল, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল হান্নান প্রমুখ।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা দ্রুত খুনীদের গ্রেফতার করে বিচারের দাবী জানান। সন্ধ্যায় উত্তেজিত এলাকাবাসী উপজেলা সদরের মোক্তারপাড়ায় জেলা বিএনপির সহসভাপতি ইমাম হাসান আবু চানের ছেলে মঞ্জুরুল হকের বাসায় হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে এবং একই সময়ে বাগিচাপাড়ায় অপর ছেলে জুলহাস মিয়ার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। এ নিয়ে উপজেলা সদরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। দুর্গাপুর থানা পুলিশ উপজেলা সদরের বিভিন্ন সড়কে টহল দিচ্ছে।

দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, হত্যা মামলার তিন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চালানো হচ্ছে। হত্যার ঘটনায় উপজেলা সদরে কিছুটা উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। আইন শৃংখলা রক্ষায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।