বিয়েতে পুরনো ছেড়া শাড়ি পরেছিলেন রাধিকা!

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

বিনোদন ডেস্ক : ২০১২ সালে লন্ডনের ব্রিটিশ ভায়োলিন বাদক ও সংগীতজ্ঞ বেনেডিক্ট টেইলরকে বিয়ে করেন বলিউড অভিনেত্রী রাধিকা আপ্তে। বেনেডিক্টের সঙ্গে রাধিকার সাতপাকে বাঁধা পড়ার কথা হয়ত অনেকেই জানেন না। রাধিকার ঠিক কবে কোথায়, কার সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তা জানেন এমন লোকজনের সংখ্যা ভীষণই কম। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে নিজরে স্বপ্নের বিয়ে নিয়ে মুখ খোলেন রাধিকা।

‘ফেমিনা’-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রাধিকা তার স্বপ্নের বিয়ে নিয়ে বলেন, “আমি আমার রেজিস্ট্রি বিয়ের দিন ঠাকুমার পুরনো শাড়ি পরেছিলাম। শাড়িটা এতটাই পুরনো ছিল, যে সেটির মধ্যে অসংখ্য ছিদ্র হয়ে গিয়েছিল। তা সত্ত্বেও আমি শাড়িটা পরেছিলাম, কারণ তিনি আমার জীবনের অত্যন্ত কাছের একজন মানুষ ছিলেন। আর তাছাড়া আমি সেধরনের ব্যক্তিদের মধ্যে পড়ি না, যারা রেজিস্ট্রি বিয়ের দিন বিপুল টাকা খরচ করে শাড়ি কিনব। তবে হ্যাঁ, অবশ্যই আমিও চাই অন্যদের মত আমাকেও সুন্দর দেখাক।”

রাধিকা বলেন, “আমি আমার বিয়ের পার্টির জন্য একটি পোশাক কিনেছিলাম, যেটার দাম ১০ হাজার টাকার থেকেও কম ছিল। আরো একটা কথা বলি, আমি এই ড্রেসটা শেষ মহূর্তে গিয়ে কিনেছিলাম, কারণ আমি পার্টির জন্য পোশাক কিনতে ভুলেই গিয়েছিলাম। আমি সেধরনের মানুষই নই, যারা পোশাকের পিছনে পড়ে থাকি।”

রাধিকা আরো বলেন, “আমি সেধরনের মানুষই নই যারা বিশ্বাস করে বিয়ে ছাড়া প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকা যায় না। আমার মনে হয় বিয়ে ছাড়াও প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকা যায়। অথচ অনেকের ক্ষেত্রেই দেখি যে বিয়েটা একটা ভীষণই ভয়ের বিষয়। আমি ছোট থেকে দেখেছি সবাই একসঙ্গে মিলে বিয়ের অনুষ্ঠান করে। আমি এটাও দেখেছি, তাদের কাছে এই প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হওয়া বিষয়টাই কতটা গুরুত্বপূর্ণ, এবং এই বিয়েটাকে বাঁচিয়ে রাখাও অনেকের কাছেই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তবে আমি বড় হয়ে বিয়েই করতে চাইতাম না। তার মানে এই নয় যে বিয়ের প্রতি আমার বিশ্বাস নেই। এমনকি আমিও রেজিস্ট্রি বিয়ে করেছি। আর এই দিনটা আমার জীবনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটা দিন। এই দিনটার সঙ্গে অনেক স্মৃতি জড়িয়ে রয়েছে।”

বিয়ের আরো একটা সুন্দর স্মৃতি শেয়ার করে রাধিকা জানান, “বিয়ের সময় আমি এবং আমার সঙ্গী (বেনেডিক্ট) চেয়েছিলাম, বিয়ের দিন কিছু রীতিনীতি পালন করা হোক। তবে সেটা যেখন কখনোই ধর্মীয় বিষয় না হয়। বিয়ের দিন উপস্থিত সমস্ত অতিথিদের আমি বৃক্ষরোপণ করার জন্য অনুরোধ করেছিলাম। আর সকলেই বৃক্ষরোপণ করেছিল, এবং সেসময় সুন্দর পোশাকও পরেছিল, অথচ সেসময় যে তাদের সুন্দর পোশাকে মাটি ভর্তি হয়ে যাচ্ছে, এটা নিয়ে কেউই মাথা ঘামননি। আমি উপস্থিত সকলকে একটা করে আম খাওয়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম।” সূত্র: জি-নিউজ