বাবার বয়সী দর্জির পাল্লায় পড়ে দেহ ব্যবসায় কলেজছাত্রী

রবিবার, অক্টোবর ১৩, ২০১৯

স্ত্রী পরিচয়ে নেয়া ভাড়া বাসায় অনৈতিক কাজের অভিযোগে মানিক চন্দ্র কর্মকার ও এক কলেজছাত্রীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার বিকেলে গ্রেপ্তারকৃতদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে বৃহস্পতিবার মধ্য রাতে সুন্দরগঞ্জ পৌর শহরের মাস্টারপাড়ার জনৈক আব্দুল আউয়ালের বাড়ি থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃত মানিক চন্দ্র কর্মকার গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার রামজীবন ইউনিয়নের পূর্ব রামজীবন (নিজপাড়া) গ্রামের মন্টুরাম কর্মকারের ছেলে। মানিক পেশায় দর্জি। তিনি স্থানীয় ডোমেরহাট বাজারে দর্জির কাজ করেন।

জানা যায়, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় ডিডব্লিউ সরকারি কলেজের ওই ছাত্রী মানিক চন্দ্রের দোকানে জামা-কাপড় তৈরি করতে মাঝে মাঝে যেত। এ সময় নানা কৌশলে তাকে অসামাজিক কাজ করতে বাধ্য করে মানিক। পরে দীর্ঘদিন ধরে পৌর এলাকার বিভিন্ন মহল্লায় স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বাসা ভাড়া নিয়ে তারা অনৈতিক কাজ করতো। তারা দুই এক মাস পরপর ভিন্ন ভিন্ন পরিচয়ে বাসা পরিবর্তন করত। তাদের বয়সের ব্যবধানসহ বিভিন্ন কারণে সন্দেহ হওয়ায় স্বামী-স্ত্রীর প্রমাণ দেখতে চাইলে এলাকাবাসীর সঙ্গে ঝগড়া করতো।

পরে জানা যায়, মানিক চন্দ্র কর্মকার প্রভাবশালী হওয়ায় ওই ছাত্রীর পরিবার নীরবে সব সহ্য করলেও তাদের পক্ষ থেকে কোনও মামলা করার সাহস পায়নি। মানিক চন্দ্রের স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। তিনি তিন বছর আগে মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন।

সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম আব্দুস সোবহান জানান, এ ব্যাপারে এসআই সামছুল হক বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। আসামিদের শুক্রবার বিকেলে গাইবান্ধা আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।