অনুমতি উপেক্ষা করেই বিএনপির সমাবেশ চলছে, পুলিশের ব্যারিকেড

শনিবার, অক্টোবর ১২, ২০১৯

ঢাকা : ভারতের সঙ্গে চুক্তি বিরোধিকা করায় বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদ, ভারতের সাথে চুক্তি বাতিল এবং কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে পূর্বঘোষিত সমাবেশ চলছে।

পুলিশ সমাবেশের অনুমিত না দিলেও বাধা উপেক্ষা করে শনিবার (১২ অক্টোবর) দুপুর ২টা থেকে সমাবেশ শুরু হয়েছে। সমাবেশস্থ ঘিরে অবস্থান করছেন বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিপুল সংখ্যক র‌্যাব ও পুলিশের পাশাপাশি মোতায়েন করা হয়েছে সাঁজোয়া যান এবং জলকামানবাহী গাড়ি। নয়াপল্টনের আশপাশেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সরব উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

সমাবেশে উপস্থিত আছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ, যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, বিএনপির তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাসার, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন প্রমুখ।

দলের প্রধান কার্যালয়ের প্রধান গেটের সামনে অবস্থান করছেন নেতাকর্মীরা। কিছুক্ষণের মধ্যে দলের নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির সদস্যরা উপস্থিত হবেন। মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে থাকায় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রবীণ সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

এর আগে শনিবার (১২ অক্টোবর) দুপুর ১টা থেকে জনসমাবেশ হওয়ার কথা থাকলেও পুলিশের অনুমতি না থাকায় খণ্ড খণ্ডভাবে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীরা নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে জড়ো হয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে শুরু করেন। পরে আর খণ্ড খণ্ডভাবে মিছিল সহকারী নয়াপল্টনে জড়ো হোন নেতাকর্মীরা।

সকালেই সমাবেশের অনুমতি চাইতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কার্যালয়ে গিয়েছিলেন বিএনপির প্রতিনিধি দল। শনিবার (১২ অক্টোবর) সকালে বিএনপির প্রতিনিধি দলটি ডিএমপি কার্যালয়ে যান। কিন্তু প্রতিনিধি দল জানিয়েছে তাদের সমাবেশের অনুমতি দেয়া হয়নি। পুলিশের অনুমিত ছাড়াই সমাবেশ করছে বিএনপি।