অভিনেত্রী ডেমিকে ধর্ষকের কাছে বিক্রি করেন তার মা!

বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৯

বিনোদন ডেস্ক : নিজের ঘরে ঢুকে পনেরো বছরের মেয়েটি দেখে, তার জন্য ‘অপেক্ষা’ করছে মায়ের এক পরিচিত। কিশোরী মেয়েটিকে সে দিন ধর্ষণ করেছিল ওই ব্যক্তি। অভিযোগ, মেয়েকে নাকি তার কাছে ৫০০ ডলারে বেচে দিয়েছিল মা! সে দিনের সেই কিশোরী মেয়েটি হলিউড তারকা ডেমি মুর। অপ্রকাশিত স্মৃতিকথা ‘ইনসাইড আউট’-এ এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করেছেন ডেমি।

শুধুমাত্র সে দিনের ঘটনাই নয়, নিজের জীবনের আরও অজানা দিক নায়িকা মেলে ধরেছেন স্মৃতিকথার পাতায়। তার হতাশা, আনন্দ, বিচ্ছেদ, জীবনের পথে হারিয়ে যাওয়া— প্রায় সবই খোলামেলা ভাবে বলেছেন ডেমি।

স্মৃতিকথা প্রকাশের আগে এবিসি-র টেলিভিশন শো ‘গুড মর্নিং আমেরিকা’য় এসে সে কথা শুনিয়েছেন দর্শকদের। শোয়ের সঞ্চালিকা ডায়ান সয়ারের কাছে ডেমি জানিয়েছেন, মা যে তাকে বিক্রি করে দিয়েছিল, সে দাবি করেছিল অভিযুক্ত ওই ধর্ষক।

ডেমিকে ধর্ষণের পর সে নাকি বলেছিল, “৫০০ ডলারের বদলে নিজের মায়ের জন্য যৌনকর্মী হয়ে কেমন লাগছে?” ডেমি জানিয়েছেন, সে দিনের ঘটনায় একেবারে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছিলেন। স্মৃতিকথায় তিনি লিখেছেন, ‘সেটা যেমন ধর্ষণ ছিল, তেমন বিধ্বস্ত করে দেওয়া বিশ্বাসঘাতকতাও ছিল। আর ওই লোকটার নিষ্ঠুর প্রশ্নে তা ধরা পড়েছিল।’

ছোটবেলার কথা বলতে গিয়ে ডেমি জানিয়েছেন, তার মা-বাবা দু’জনেই মদ্যপ ছিলেন। সেই সঙ্গে মানসিক সমস্যাতেও ভুগছিলেন তারা। ডেমির দাবি, কিশোরী অবস্থাতেই মা তাকে বিভিন্ন পানশালায় নিয়ে যেতেন, যাতে পুরুষের নেকনজরে পড়েন। নিজের পাশাপাশি মায়ের জীবনের অজানা দিকও তুলে ধরেছেন ডেমি।

ছেলেবেলার ভয়ঙ্কর দিনগুলি যেন ছায়া ফেলেনি ডেমি মুরের অভিনয় জীবনে। নিজের কেরিয়ারে চূড়ান্ত সাফল্য পেয়েছেন। যার শুরুটা হয়েছিল গত শতকের আশির দশক থেকে। সে সময় থেকেই নাম ছড়াতে থাকে ডেমির।

‘ব্লেম ইট অন রিও’, ‘সেন্ট এলমোস ফায়ার’ বা ‘অ্যাবাউট লাস্ট নাইট… ’-এর মতো ফিল্মে নজর কাড়েন। পরের দশকে তো হলিউডের সবচেয়ে বেশি রোজগেরে অভিনেত্রীর তকমাও জোটে। ১৯৯০-তে প্যাট্রিক সোয়েজি-র বিপরীতে রোম্যান্টিক থ্রিলার ‘গোস্ট’ ডেমিকে খ্যাতির শিখরে পৌঁছে দেয়। এর পরের কয়েক বছরে তাকে দেখা যায় ‘ফিউ গুড মেন’, ‘ইনডিসেন্ট প্রোপোজাল’, ‘ডিসক্লোজার’-এর মতো একের এক ব্লকবাস্টার ফিল্মে।

স্মৃতিকথায় নিজের জীবনের বহু ব্যক্তিগত অজানা কথাগুলি প্রকাশ করেছেন ডেমি। ডেমি লিখেছেন, ‘দু’টো কারণে এ কথাগুলো বলতে চেয়েছি। প্রথমত, এটা আমার কাহিনি। দ্বিতীয়ত, এটা আমার কাহিনি হলেও এর কিছুটা অংশ বোধহয় আপনাদেরও গল্প।’ স্মৃতিকথায় এমনটাই লিখেছেন ডেমি মুর।