জি কে শামীমের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০০ কোটি টাকা, লেনদেন ‘অবরুদ্ধ’

সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৯

ঢাকা: যুবলীগ নেতা পরিচয়ে ঠিকাদারি চালিয়ে আসা টেন্ডার কিং খ্যাত এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীমের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০০ কোটি টাকা আছে বলে গণমাধ্যমের খবরে উঠে এসেছে। ইতোমধ্যে তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে সব ধরনের লেনদেন স্থগিত (অবরুদ্ধ) করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

জানা গেছে, গতকাল রবিবার জি কে শামীমের ব্যাংক হিসাব থেকে টাকা তোলার জন্য বড় বড় অঙ্কের বেশ কয়েকটি চেক ব্যাংকে জমা পড়ে।

এর পরই ব্যাংকগুলো থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকে যোগাযোগ করে পরামর্শ চাওয়া হলে দুপুরের মধ্যেই জি কে শামীমের ব্যাংক হিসাবে লেনদেন অবরুদ্ধ করে নির্দেশনা জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক।

নির্দেশনায় জানানো হয়, টেন্ডার কিং জি কে শামীম, তার স্ত্রী ও মা-বাবার নামে থাকা সব ব্যাংক হিসাব স্থগিত করে আগামী ৫ দিনের মধ্যে এ-সংক্রান্ত সব তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংককে দাখিল করতে হবে।

গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে দুই মামলায় ১০ দিনের রিমান্ডে থাকা এস এম গোলাম কিবরিয়া ওরফে শামীম নিজের নাম সংক্ষেপ করে জি কে শামীম নামে পরিচয় দিতেন। তার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নাম জি কে বিল্ডার্স। নিজেকে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সমবায়বিষয়ক সম্পাদক বলেও পরিচয় দিতেন জিকে শামীম।

এরইমধ্যে গেল শুক্রবার দুপুরে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‍্যাব) সদস্যরা রাজধানীর নিকেতনে জি কে শামীমের নিজ কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে তাকে ও তার ৭ দেহরক্ষীকে গ্রেফতার করেন।

এসময় র‌্যাব সদস্যরা জি কে শামীকের কার্যালয় থেকে ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা, ১৬৫ কোটি টাকার স্থায়ী আমানতের (এফডিআর) কাগজপত্র (তার মায়ের নামে ১৪০ কোটি), ৯ হাজার ইউএস ডলার, ৭৫২ সিঙ্গাপুরি ডলার, একটি আগ্নেয়াস্ত্র ও বিভিন্ন ব্রান্ডের বিদেশি মদের বোতল জব্দ করে।

এদিকে গত শনিবার অস্ত্র ও মাদকের দুই মামলায় পুলিশের আবেদনের প্রেক্ষিতে জি কে শামীমকে ১০ দিনের রিমান্ডে পাঠান ঢাকার মহানগর হাকিম বেগম মাহমুদা আক্তার।

তার ৭ দেহরক্ষী হলেন- দেলোয়ার হোসেন, মুরাদ হোসেন, জাহিদুল ইসলাম, সহিদুল ইসলাম, কামাল হোসেন, সামসাদ ও আমিনুল ইসলাম। তাদেরকেও অস্ত্র মামলায় ৪ দিন রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।