কবে জেলে যাবে শোভন-রাব্বানী, জানতে চান মোশাররফ

বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

ঢাকা : ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সাবেক প্রধানমন্ত্রী হয়েও দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী হয়েও মাত্র দুই কোটি টাকার মামলায় যদি কারাবন্দি থাকতে পারেন তবে ছাত্রলীগের সভাপতি শোভন ও সাধারণ সম্পাদক রাব্বানী জাবির উন্নয়ন প্রকল্পের ৮৬ কোটি টাকা আত্মসাতের দায়ে কবে জেলখানায় যাবেন?’

বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী নবীন দল নামক একটি সংগঠন আয়োজিত বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমন প্রশ্ন রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদককে বহিষ্কার করা হয়েছে। আবার সরকার দলের লোকেরা নিজেরাই বলছেন, ছাত্রলীগের থেকেও যুবলীগের মধ্যে বড় দুর্নীতি-টেন্ডারবাজি আছে। এমন অভিযোগও আছে- ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অপসারণের সাথেও নাকি অনেকে জড়িত আছেন।’

তিনি বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন বালিশের দুর্নীতি, পর্দার দুর্নীতি, বইয়ের দুর্নীতি। পত্রিকায় খবর বেরিয়েছে, কোনও একটা প্রতিষ্ঠান ১০ কোটি টাকার সরঞ্জাম পাহারা দেয়ার জন্য ৪৫ কোটি টাকা খরচ করেছে। এইভাবে দেশ চলছে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, ‘যে মামলায় বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে এই মামলার সাথে তাঁর কোনও সম্পৃক্ততাই নেই। শুধুমাত্র রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাঁকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। যে দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে খালেদা জিয়াকে জেলে আটকে রাখা হয়েছে সেই টাকা আজ ৬ কোটিতে পরিণত হয়েছে। দুই কোটির যায়গায় ৬ কোটি হলে আত্মসাত করা হলো কীভাবে?’

তিনি বলেন, ‘সরকারের উদ্দেশ্য ছিলো খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে বিএনপিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে দূরে রেখে আবারও ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন করে অলিখিত বাকশাল প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু আমরা বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নির্বাচনে গিয়েছি। তখন আমরা দেখেছি, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য ধানের শীষে ভোট দিতে মানুষ কতটা প্রস্তুত ছিল, কতটা ব্যাকুল ছিল। আর এ কথা জানতে পেরে সরকার ৩০ ডিসেম্বরের ভোট জনগণের হাতে দিতে সাহস পায়নি। তাই ভোটের আগের রাতে ২৯ ডিসেম্বর ভোট ডাকাতি হয়েছে, জনগণের ভোট ডাকাতি করে তারা আজকে গায়ের জোরে সরকার পরিচালনা করছে।’

মোশাররফ বলেন, ‘আজকে বাংলাদেশের সবচেয়ে সংকট হচ্ছে গণতন্ত্রহীনতা। বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে থাকার কারণেই বাংলাদেশকে গণতন্ত্রহীন করে রাখা সম্ভব হয়েছে। দেশে অলিখিত বাকশাল প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হয়েছে। অলিখিত বাকশালকে পাকাপোক্ত করার জন্য বেগম জিয়াকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। আমরা চাই বেগম জিয়া অতিদ্রুত মুক্তি পাক, তিনি মুক্তি না পেলে দেশের গণতন্ত্র মুক্তি পাবে না।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি হুমায়ুন কবিরের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ ও কৃষকদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কেএম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ বক্তব্য দেন।