দেড় হাজার পিস ইয়াবায় বরিশালে ৫ ব্যবসায়ীর সাজা

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজ হেফাজতে ইয়াবা রেখে বিক্রি করার অপরাধে ৫ জন মাদক ব্যবসায়িকে বিভিন্ন মেয়াদের সাজা দিয়েছে আদালত। ১২ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার এ দন্ড দেন বরিশালের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. রফিকুল ইসলাম।

সাজাপ্রাপ্ত আসামীরা হচ্ছে কাউনিয়া খালপাড় বস্তি এলাকার মৃত্যু কামরুল গাজীর ছেলে সজল ওরফে সাজন গাজী,নতুন বাজার আদি শ্নশ্নান বস্তির সাগর মজুমদারের ছেলে জনি মজুমদার, বি এম স্কুল এলাকার আলী হোসেন মৃধার ছেলে জুম্মান হোসেন মৃধা ও জনির বড় ভাই সুজন মজুমদার এবং পটুয়াখালী জেলা ও পৌরসভার পুরান বাজার এলাকার মৃত্যু কালাচান ধরের ছেলে কাজল ধর ওরফে বিকাশ ধর।

এদের বিরুদ্ধে গতবছর ২১ মার্চ কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন ডিবির ফিরোজ আহমেদ। অভিযোগে তিনি বলেন,২০ মার্চ নতুন বাজার এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করার সময় জনি মজুমদারের জোতস্না ইলেকট্রিক ও সাউন্ড নামক দোকানের মধ্য হতে ৫ জনকে আটক করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদের সময় সজল ১ হাজার পিস,জনি ২ শ পিস এবং বাকি ৩ জনে প্রত্যেকে ১ শ পিস করে মোট দেড় হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট বের করে দেয় এবং তারা মাদক ব্যবসা করার কথা স্বীকার করেন। তদন্তে সত্যতা পেয়ে ডিবি পুলিশের পরিদর্শক কাজী মাহবুবুর রহমান একই বছরের ২৯ এপ্রিল ৫ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট জমা দেন।

মামলায় ১৪ জনের সাক্ষ্য নিয়ে দোষী সাব্যস্ত হলে আদালত সজলকে ১২ বছর কারাদণ্ড সহ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদন্ড,জনিকে ৭ বছর কারাদণ্ড সহ ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৬ মাস কারাদন্ড এবং জুম্মান, সুজন ও কাজলের প্রত্যেককে ৬ বছর কারাদণ্ড সহ ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৩ মাস কারাদণ্ড দেন।রায় ঘোষনার সময় আসামী সজল পলাতক ছিলো এবং বাকি ৪ জন উপস্থিত ছিল। রায়ে সজলের বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানা ও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

রায় শেষে উপস্থিত ৪ আসামীকে পুলিশ প্রহরায় সাজাভোগে বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।