অডিট রিপোর্ট জমা দিয়েছে ৩৩ দল

ঝুঁকিতে ৬ নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল

মঙ্গলবার, আগস্ট ৬, ২০১৯

ঢাকা: বার্ষিক আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা না দেওয়ায় নিবন্ধিত ৬ টি রাজনৈতিক দল ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্দিষ্ট সময়ে হিসাব না দেওয়ায় দলগুলোকে বিশেষ সতর্ক করছে সাংবিধানিক এ প্রতিষ্ঠানটি।

ইসি কর্মকর্তারা জানান, বর্তমানে ইসিতে ৪১ টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল নিবন্ধিত রয়েছে। এর মধ্যে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও বাংলাদেশ কংগ্রেস দুটি নতুন দল হওয়ায় তাদের এ বছর বার্ষিক আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দিতে হবে না। বাকি ৩৯ দলের মধ্যে ৩৩ টি দল ৩১ জুলাই ২০১৯ তারিখ তাদের হিসাব জমা দেন। আর ৬ দল ইসির বেধে দেওয়া ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে হিসাব জমা না দেওয়ায় তারা নিবন্ধন ঝুঁকিতে রয়েছে।

নির্দিষ্ট সময়ে যে ৬ টি দল বার্ষিক আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দেয়নি সেগুলো হচ্ছে, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, বাংলাদেশ সাম্যবাদী দল (এমএল), জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি – জাগপা, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট, ইসলামি ঐক্যজোট ও বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি – বিজেপি।

রাজনৈতিক দল নিবন্ধন বিধিমালা, ২০০৮ এর বিধি ৯ এর (খ) অনুযায়ী নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল এর অডিট রিপোর্ট প্রতি বৎসর ৩১ শে জুলাইয়ের মধ্যে পূর্বের পঞ্জিকা বৎসরের সংশ্লিষ্ঠ দলের আর্থিক লেনদেনের রেজিস্টার্ড চার্টার্ড একাউন্টিং ফার্ম দ্বারা অডিট করে অডিট রিপোর্টের একটি কপি কমিশনে দাখিল করাতে হয়।

এসব বিষয়ে ইসি সচিবালয়ের যুগ্ম সচিব আবুল কাশেম বলেন, ৩৩ টি রাজনৈতিক দল বার্ষিক আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দিযেছে। আর বাকি ৬ টি দল ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সময় বৃদ্ধি করার আবেদন করেছে। কমিশন তাদের আবেদন গ্রহন করবেন কি না এটি কমিশন সিদ্ধান্ত নিবে। তাদের বিরুদ্ধে কি ধরনের ব্যবস্থা নিবে সেটা বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।

৩১ জুলাইয়ের মধ্যে যেসব দল ইসিতে হিসাব জমা দিয়েছে সেগুলো হচ্ছে, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় পার্টি-জেপি, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল-পিডিপি, খেলাফত মজলিস, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, জাতীয় পার্টি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, গণফ্রন্ট, বাংলাদেশের বিপ¬বী ওয়ার্কার্স পার্টি, জাকের পার্টি, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি), বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি), বাংলাদেশ মুসলিম লীগ, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, গণফোরাম, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, বিকল্প ধারা বাংলাদেশ, গণতন্ত্রী পার্টি, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ ও বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি।

জানা যায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি এ দুটি বড় দলের আয় বেড়েছে এবার । বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আয় দেখানো হয়েছে, ২৪ কোটি ২৩ লাখ ৪২ হাজার ৭০৭ টাকা। দলটির ব্যয় হয়েছে ১৮ কোটি ৮৭ লাখ ৮০ হাজার ৫৫৭ টাকা। দলের তহবিলে বর্তমানে ৩৭ কোটি ৫৭ লাখ ৭৮ হাজার ৫৮৭ টাকা অবশিষ্ট রয়েছে। অন্যদিকে বিএনপির আয় হয়েছে ৯ কোটি ৮৬ লাখ ৫৬ হাজার ৩৮০ টাকা। আর ব্যয় হয়েছে ৩ কোটি ৭৩ লাখ ২৯ হাজার ১৪৩ টাকা। এখন পর্যন্ত বিএনপির দলীয় তহবিলে মোট উদ্বৃত্ত রয়েছে ৬ কোটি ১৩ লাখ ২৭ হাজার ২৩৭ টাকা।

২০০৮ সালে নিবন্ধন প্রথা চালুর পর গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ মেনে প্রতিবছর আর্থিক লেনদেনের হিসাব দেয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর। কোন দল পরপর তিন বছর আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা না দিলে ইসি চাইলে তার নিবন্ধন বাতিল করতে পারে। অনেক দল সে সময়ের মধ্যে হিসাব জমা দিচ্ছেনা এ কারণে ইসি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে।