নোবেলকে এক হাত নিলেন দুই মন্ত্রী

রবিবার, আগস্ট ৪, ২০১৯

ঢাকা : সম্প্রতি শেষ হয়েছে জি বাংলার সংগীতবিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘সা রে গা মা পা’। এ অয়োজনে ভারতের একজনের সঙ্গে যৌথভাবে তৃতীয় হয়েছেন বাংলাদেশের মাঈনুল আহসান নোবেল। এখানেই শেষ হয়েছে নোবেলের ‘সা রে গা মা পা’র জার্নি।

এ নিয়ে কলকাতা ও বাংলাদেশের নোবেলভক্তদের যখন দুঃখের শেষ নেই, তখনই নতুন এক বিতর্কে জড়ালেন এ শিল্পী। একটি লাইভ সাক্ষাৎকারে জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে মন্তব্য করে নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন নোবেল।

সেই সাক্ষাৎকারে নোবেল বলেছেন, ‘রবীন্দ্রনাথের লেখা জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা’ যতটা না দেশকে প্রকাশ করে তার চেয়ে কয়েক হাজার গুণ বেশি প্রকাশ করেছে প্রিন্স মাহমুদের লেখা ‘বাংলাদেশ’ গানটি।

‘বাংলাদেশ’ গানটি নিয়ে নিজের আবেগের বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে গিয়ে নোবেল এইসব বলেন। এই নোবেলের এমন মন্তব্যে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া। তাকে এমন মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইতে বলছেন অনেকেই। অনেকেই দেশের জাতীয় সংগীতকে অপমান করার জন্য তার বিচারও দাবি করেছেন।

তবে নোবেলের এই জাতীয় সঙ্গীতকে নিয়ে মন্তব্য করাকে ভালো চোখে দেখেননি দুই মন্ত্রীও। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এবং পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান নোবেলকে নিয়ে মন্তব্য ছুড়েলেন।

রবিবার (৪ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীতে ‘চলচ্চিত্রে বঙ্গবন্ধুর অবদান’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ শুধু পতাকা বা মানচিত্র পাবার জন্য হয়নি। যুদ্ধ হয়েছে মানুষের মুক্তির জন্য। যারা বলে পতাকা বদলাও, যারা বলে জাতীয় সঙ্গীত বদলাও বলে তারা স্বাধীনতাবিরোধী। এদের শেকড় জাতির পিতার খুনিদের সাথে।

একই অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, নোবেল জাতীয় সংগীত নিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছে তা ঠিক হয়নি। বাচ্চা ছেলে হিসেবে হয়তো এটা বড় ভুল করেছে। তরুণ প্রজন্মকে এসব ভ্রান্তি থেকে দূরে থাকতে হবে।

এই নোবেলের এমন মন্তব্যে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া। তাকে এমন মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইতে বলছেন অনেকেই। অনেকেই দেশের জাতীয় সংগীতকে অপমান করার জন্য তার বিচারও দাবি করেছেন।