ভালুকায় চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার আসামী স্বামী-স্ত্রী গ্রফতার

শনিবার, জুলাই ২০, ২০১৯

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ময়মনসিংহর ভালুকায় চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার আসামী স্বামী ও স্ত্রীক গ্রফতার করা হয়ছ। হত্যার ১মাস ২দিনর মাথায় শুক্রবার রাত উপজলার সিডষ্টার বাজার এলাকা থক এসব আসামীদর গ্রফতার করন পাগলা থানা পুলিশ ।

পুলিশ সূত্র জানা যায়, গল ১৭ জুন’১৯ ভালুকা উপজলার সীমাবর্তী পাগলা থানার জয়ধরখালী নামক এলাকায় বস্তাভর্তি এক অজ্ঞাত যুবকর লাশ উদ্ধার কর থানা পুলিশ। ওইদিনই লাশর পরিচয় মিল।

গাজীপুরর শ্রীপুর উপজলার ধামলই গ্রামর মত করিম বপারীর ছল নুরল হক। তিনি মাওনা এলাকায় ভাড়াবাসায় থক ভাড়ায় প্রাইভটকার চালাতন। ধতআসামীদর বরাদ সময়র আলাক পুলিশ জানান, শ্রীপুর উপজলার যাগিরসিট গ্রামর জিনাহর ময় মসুমী।

কয়ক বছর পূর্ব মাওনা এলাকার জনক আমির হামজার সাথ মসুমীর বিয় হল স্বামী মাদকসবী হওয়ায় ১টি সান জন্ম নিলও ভঙ্গ যায় তাদর সংসার। সংসার ছাড়াছাড়ির পর মসুমী ওখানকার এমসি বাজার জনক হাসমর বাসা ভাড়া নিয় স্থানীয় একটি কিন্ডারগার্ডন স্থুল শিক্ষকতা শুর করল ওই সুবাধই পরিচয় হয় ড্রাইভার নুরল হকর সাথ। মসুমী ও নুরল হকর বাড়ি পাশাপাশি গ্রাম। প্রায় বছরখানক আগ নুরল হক মসুমীক তার গ্রামর বাড়িত নিয় যাওয়ার কথা বল প্রাইভট কার তুল কশল মসুমীক অজ্ঞান কর তার নগ ভিডিও ধারন কর রাখ।

ওই নগ ভিডিও প্রকাশ কর দয়ার ভয় দখিয় নুরল প্রায়ই মসুমীক যন নিপীড়ন করত। যন নিপীড়ন অতিষ্ট মসুমী সাত মাস পূর্ব ওই এলাকা ছড় ভালুকা উপজলার সিডষ্টার বাজার এলাকায় চল আসন এবং এলপি গ্যাস ব্যবসায়ী রজাউল করিম রাজুর (২৮) সাথ বিবাহ আবদ্ধ হন।

এখানও মসুমীর সন্ধান পয় নুরল তাক নগ ভিডিও প্রকাশর অব্যাহত হুমকির প্রক্ষিত এ এলাকা ছড় তারা শ্রীপুরর বরমী বাজার চল যান। ওখানও নুরল মসুমীদর ভাড়া বাসায় গিয় তার নগ ভিডিও প্রকাশর হুমকি দয়া শুর করল ১৬ জুন’১৯ রাত মসুমী নুরল হক প্রথম তীব্র ঘুমর ঔষধ মশানা পায়স খাওয়ান এবং অজ্ঞান হয় পড়ল মসুমী, তার স্বামী রাজু ও আরক কর্মচারী মিল নুরল হকক শ্বাসরদ্ধ কর হত্যা কর।

পরদিন নুরলর লাশ বস্তায় ভর এলপি গ্যাস পরিবহনর গাড়ী দিয় ভালুকা উপজলার সীমাবর্তী পাগলা থানাধীন জয়ধরখালী গ্রামর ময়না ফকিরর বাড়ির পাশর ঝাপ পল রাখ। ঘটনার ১মাস ২দিনর মাথায় উপজলার সিডষ্টার বাজার এলাকা থক মসুমী ও তার স্বামী রাজু ক শুক্রবার রাত গ্রফতার করন পাগলা থানা পুলিশ।

এব্যাপার পাগলা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদ) ফায়জুর রহমান আসামী গ্রফতার বিষয় নিশ্চিত কর বলন, বিকত যনাচারণর জন্যই নুরল হক খুন হয়ছ। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার কর আগ রজাউল করিম রাজু গ্রফতার করি এবং পর রাজুর স্বীকারাক্তি মত তার স্ত্রী মসুমীক শুক্রবার রাত ভালুকার সিডষ্টার থক গ্রফতার করা হয়।