জনগণের প্রত্যাশা হচ্ছে বেগম জিয়ার মুক্তি: আমির খসরু

শনিবার, জুলাই ২০, ২০১৯

ঢাকা : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে আটকে রাখার প্রতিবাদে এবং মুক্তির জন্যই বিভাগীয় পর্যায়ে সভা হচ্ছে রাজনৈতিক কর্মসূচি হিসেবে। জনগণের প্রত্যাশাই হচ্ছে বেগম জিয়ার মুক্তি, বললেন বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আমির খসরু মাহমুদ।

আমির খসরু বলেন, বেগম জিয়াকে জেলে রেখে যেভাবে দেশে নির্বাচন করা হয়েছে, জনগণের ভোটাধিকারসহ মৌলিক অধিকার, বাক স্বাধীনতা, আইনের শাসন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। মানুষের পিঠ দেওয়ালে ঠেকে গেছে। এই সময়টিতে দেশের গণতন্ত্র, মালিকানা ও আইনের শাসন ফিরিয়ে আনার জন্য বেগম জিয়ার মুক্তি অত্যান্ত প্রয়োজন।

বিএনপির সংসদে যাওয়া প্রসঙ্গে আমির খসরু বলেন, বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল। সংসদীয় গণতন্ত্র বেগম জিয়ার হাত ধরেই এসেছে। সুতরাং গণতান্ত্রিক যে প্রক্রিয়া রয়েছে সেটি বেগবান করতে হবে। কারণ বিএনপি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। দেখা যাচ্ছে দেশে আইনের শাসন নেই। দেশের মানুষ রাজনৈতিকভাবে খুবই সচেতন।

বর্তমানে তারা একটি শ্বাসরুদ্ধকর পরিবেশে অবস্থান করছে। তারা সেখান থেকে মুক্তি চায়। সুতরাং বিএনপি একটি বড় দল হিসেবে আমাদের দায়িত্ব মানুষের পাশে দাঁড়ানো।

তিনি বলেন, যখনই কোনো স্বৈরাচার এসেছে, অরাজকতা ও অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া এসেছে তখনই দেশের মানুষ তা প্রতিহত করেছে। নিজেদের অধিকার আদায় করেছে। এবারো সেটিই করবে। একটি অনির্বাচিত সরকার দেশ চালাতে পারে না বিধায় আরেকটি নির্বাচন হতে হবে। যেখানে জনগণ তাদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করবে। সেই প্রক্রিয়া যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব বিএনপিকেই প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।

এনিয়ে বরিশালে বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে বিশাল জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। চট্টগ্রামেও নিজস্ব উদ্যোগে জনগণ সভার প্রস্তুতি নিচ্ছে।