ধর্ষকের শাস্তি ‘আমৃত্যু কারাদণ্ড’র দাবি বি.চৌধুরীর

বৃহস্পতিবার, জুলাই ১৮, ২০১৯

ঢাকা : বাংলাদেশে ধর্ষকের শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড থেকে ‘আমৃত্যু কারাদণ্ড’ করার দাবি জানিয়ে মানববন্ধন ক‌রে‌ছেন বিকল্পধারা বাংলাদেশ-এর প্রেসিডেন্ট, যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক এ.কিউ.এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিকল্পধারা বাংলাদেশ আয়োজিত ‘নারী ও শিশু নির্যাতন আইন (২০০৩) প্রয়োগ’ এর দাবিতে এক মানববন্ধনে তিনি এ দাবি জানান।

বি. চৌধুরী বলেন, ‘১২ বছরের নিচের শিশুদের ধর্ষণকারীরা কখনোই মানুষ হতে পারে না। আজকে ভারতবর্ষে আইন পাস করা হয়েছে, ১২ বছরের নিচের শিশুদের যারা ধর্ষণ করবে তাদের একমাত্র শাস্তি হবে মৃত্যুদণ্ড। আমরা মৃত্যুদণ্ডের বিরোধী। কিন্তু যেখানে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড রয়েছে সেখানে যাবজ্জীবন বাদ দিয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিতে হবে। এই ব্যবস্থা আপনি (প্রধানমন্ত্রী) করুন। ইনশাল্লাহ সারা বাংলাদেশের জনগণ আপনাকে সমর্থন করবে।’

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে আজকে ধর্ষণের সংখ্যা বাড়ছে। এই লজ্জা সারা পৃথিবীর কাছে আমাদের মাথা হেট করে দিয়েছে। আজকে আমাদের মায়েরা, মেয়েরা, কন্যারা কেউ নিরাপদ নয়। স্কুলে তারা নিরাপদ নয়, বাড়িতে নিরাপদ নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরাপদ নয়, এমনকি মাদরাসায়ও নিরাপদ নয়। এর চেয়ে বড় লজ্জার আর কি হতে পারে।’

এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী হস্তক্ষেপ কামনা করে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী, আপনি একজন মহিলা, আপনি একজন মা। সেই হিসেবে সারা দেশের সঙ্গে আমরা কণ্ঠ মিলিয়ে বলছি আমাদের দাবি মানতে হবে। আজকে যে ধর্ষণের সংখ্যা বেড়েছে তা জাতির জন্য, ইতিহাসের জন্য বড় লজ্জার। ধর্ষণের জন্য বড় বড় আইন আছে। কিন্তু সেই আইনের প্রয়োগ আমরা দেখতে পাই না। যেভাবে আইন প্রয়োগ করার কথা ছিল সেভাবে আইন প্রয়োগ করা হচ্ছে না।’

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বি. চৌধুরী বলেন, ‘যারা মাদরাসা, হাই স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের ধর্ষণ করে, সেইসব শিক্ষকদের জীবনে আর কোনও সরকারি-বেসরকারি শিক্ষালয়ে যেন চাকরি না হয় সেজন্য পরিষ্কার বিধান করুন। বাংলাদেশের জনগণ চায় নিরাপদ শিক্ষালয়। আজকের শিক্ষালয় নিরাপদ নয়। আমরা ধর্ষিতার ছবি দেখতে চাই না, আমরা ধর্ষকের ছবি বড় বড় করে ছাপাতে চাই। ধর্ষণ প্রতিরোধে একটি সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে চাই।’

মানববন্ধনে বিকল্পধারার সিনিয়র নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।