সিরাজগঞ্জে বন্যার পানিতে সাড়ে ৯০০ গ্রাম প্লাবিত

বুধবার, জুলাই ১৭, ২০১৯

সিরাজগঞ্জ: কয়েকদিনের ভারী বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে যমুনা নদীর পানি বাড়া অব্যাহত আছে। এতে সিরাজগঞ্জের নদী বেষ্টিত চরাঞ্চলের অন্তত সাড়ে ৯০০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

বন্যা কবলিত এসব এলাকার ফসলি জমি ইতোমধ্যে তলিয়ে গেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অন্তত ২১ হাজার পরিবার।

যমুনা নদীর পানি গত ২৪ ঘণ্টায় আরও বেড়ে গেছে। যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে বিপদসীমার ৪২ সেন্টিমিটার ও কাজিপুর পয়েন্টে ৮০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী কে এম রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রফিকুল ইসলাম বলেন, সকালে যমুনার পানি সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে ১৩ দশমিক ৭৭ মিটার রেকর্ড করা হয়। যা বিপদসীমার ৪২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। (ডেঞ্জার লেভেল ১৩ দশমিক ৩৫)। কাজীপুর পয়েন্টে রেকর্ড করা হয় ১৬ দশমিক ৫ মিটার যা বিপদসীমার ৮০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আরো দু’একদিন পানি বাড়তে পারে বলে জানান তিনি।

সিরাজগঞ্জ জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম জানিয়েছেন, যমুনার পানি দ্রুত বাড়ায় চরাঞ্চল অধ্যুষিত গ্রামগুলোতে বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে। দুপুর পর্যন্ত ৫টি উপজেলার ৯৩৬টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

তিনি আরও জানান, বন্যা কবলিত গ্রামের ২১ হাজার ৫৫২ পরিবারের লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। বন্যার্তদের বিতরণের জন্য ৪৯৪ টন চাল ও ৮ লাখ টাকা মজুদ রয়েছে। পরিস্থিতি অস্বাভাবিক হলে এগুলো বিতরণ করা হবে।