শিক্ষকদের সম্মান রক্ষায় এগিয়ে আসুন: যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি

রবিবার, জুলাই ৭, ২০১৯

যবিপ্রবি প্রতিনিধি : দেশের সকল শিক্ষকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানিয়ে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (যবিপ্রবি) শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও নীল দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো: ইকবাল কবীর জাহিদ বলেছেন, বাংলাদেশের শিক্ষকেরা এখন নানামুখি সংকটে রয়েছে।

চট্টগ্রামের ইউএসটিসির উপদেষ্টা-অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদের উপর যে ন্যাক্কারজনক হামলা হয়েছে, তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। দেশবাসীর প্রতি আমার আহ্বান, শিক্ষকদের সম্মান রক্ষায় আপনারা এগিয়ে আসুন।

আজ রোববার বিকেলে যশোর প্রেসক্লাবের সামনে ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, চট্টগ্রামের (ইউএসটিসি) ইংরেজি বিভাগের উপদেষ্টা-অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদের উপর হামলার প্রতিবাদে যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি আয়োজিত মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে ড. ইকবাল কবীর জাহিদ এসব কথা বলেন।

ড. ইকবাল কবীর জাহিদ বলেন, আমরা পড়াশোনা ছাড়া আর কিছুই করতে পারি না। আমাদের হাতে কোনো অস্ত্র নেই। সুতরাং কেউ আক্রমন করলে আমরা পাল্টা আক্রমন করতে পারি না। শিক্ষা প্রদানই আমাদের একমাত্র অবলম্বন। তিনি বলেন, ইউএসটিসির শিক্ষক মাসুদ মাহমুদের হামলাকারী একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কিন্তু এখনো অনেকে ধরাছোঁয়ার বাইরে। জড়িত সবাইকে গ্রেপ্তার করে দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এই মানববন্ধনের মাধ্যমে আমাদের আশা ভরসার শেষ আশ্রয়স্থল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট আকুল আবেদন, ‘আপনি দয়া করে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করে শিক্ষাকে বাঁচান এবং জাতিকে রাহু মুক্ত করুন।’

অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদের উপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. মো. নাজমুল হাসান বলেন, কতিপয় ছাত্র নামধারী সন্ত্রাসী অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদকে টেনে-হিঁচড়ে তাঁর জামা ছিড়ে ফেলে, তাঁকে কিল-ঘুষি দেয়। পরবর্তীতে তাঁকে পুড়িয়ে মারার উদ্দেশ্যে গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে দেয়। একজন শিক্ষককে এভাবে অপমান করাটা সভ্য সমাজের জন্য যেমন লজ্জার, তেমনি জাতি হিসেবে আমাদের জন্য দুর্ভাগ্যের। কোনো শিক্ষক সমাজ এটা মেনে নিতে পারে না।

শেখ হাসিনা ছাত্রী হলের প্রাধ্যক্ষ ড. সেলিনা আক্তার বলেন, অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদের শিক্ষা প্রদানের পদ্ধতি নিয়ে আজীবন তিনি প্রশংসা পেয়েছেন। অথচ কোনো ক্লাস না করে কিছু ছাত্র পরীক্ষা দিতে চেয়েছিল, এখানে মাসুদ মাহমুদ বাধা দিয়েছেন। এরপর তার সঙ্গে যা হলো সেটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতির দাবির প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী শিক্ষকবৃন্দদের সংগঠন যবিপ্রবির নীল দল। নীল দলের নির্বাহী সদস্য ডা. ফিরোজ কবির বলেন, কিছু বিপথগামী শিক্ষার্থীরা যেভাবে ধর ধর বলে অধ্যাপক মাসুদ মাহমুদকে তাড়া করেছিল, তা একটি সভ্য জাতির জন্য লজ্জার। এ ধরনের কর্মকা- কুঁড়িতেই বিনষ্ট না করা গেলে ভালো মানের শিক্ষার পরিবেশ এ দেশে থাকবে না।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন যবিপ্রবির রিজেন্ট বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক ড. বিপ্লব কুমার বিশ্বাস, যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সহসভাপতি অধ্যাপক ড. সাইবুর রহমান মোল্যা, পরিবেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো দেলোয়ার হোসেন, অধ্যাপক ড. সুব্রত মন্ডল, যবিপ্রবির সহকারী প্রক্টর ড. হাসান মো. আল ইমরান, শিক্ষক সমিতির সহ-সাধারণ সম্পাদক ড. প্রকৌশলী মো: আমজাদ হোসেন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক হয়েছেন কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ নওশীন আমিন শেখ, কার্যনির্বাহী সদস্য হয়েছেন ফার্মেসি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো: ওবায়েদ রায়হান, ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক আল-ওয়ালিদ, ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রভাষক ফাতেমা সুলতানা, গণিত বিভাগের প্রভাষক দীপা রায় প্রমুখ।