উৎপাদনে যাচ্ছে পায়রা তাপবিদ্যুতের প্রথম ইউনিট

বৃহস্পতিবার, জুন ২৭, ২০১৯

ঢাকা: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় পায়রা ১৩২০ মেগাওয়াট তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে আবারও কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। চায়না শ্রমিকদের পদচারণায় বিদ্যুৎ কেন্দ্র এলাকায় কাজের গতি বৃদ্ধি পেয়েছে। ইতোমধ্যে পাওয়ার প্লান্টের ক্ষতিগ্রস্ত যন্ত্রপাতি ও অবকাঠামো উন্নয়নে কাজ শুরু করেছে শ্রমিকরা।

এতোমধ্যে শ্রমীকদের মধ্যে কর্মপরিবেশ সৃষ্টি ও ভাষাগত সমস্যা দূর করতে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে দেশি বিদেশি শ্রমিকদের সমন্বয়ে পুরোদমে কাজ শুরু করা যাবে।

বুধবার (২৬ জুন) দুপুরে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভিআইপি হলরুমে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন বাংলাদেশ চায়না পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিপিসিএল) প্রকল্প পরিচালক শাহ আব্দুল মাওলা।

শাহ আব্দুল মাওলা বলেন, গত মঙ্গলবার এর ঘটে যাওয়া সহিংস ঘটনাটি অনভিপ্রেত। এ ঘটনায় যেসব চাইনিজ ও বাঙালি শ্রমিক আহত হয়েছে তাদের চিকিৎসা চলছে। অনেকেই ইতিমধ্যে সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

এদিকে যে সব মালামাল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তার পর্যালোচনা চলছে। কিছু মালামাল বিদেশ থেকে আনার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এগুলো স্থাপন ও ক্ষতিগ্রস্ত যন্ত্রপাতি মেরামত সাপেক্ষে খুব শিগগিরই এখানকার কর্মযজ্ঞ শুরু হবে এবং আগামী ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যেই এ প্রকল্পের প্রথম ইউনিট উৎপাদনে যাবে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশি ছয় থেকে সাত হজার শ্রমিকদের ঈদ বোনাসসহ সব পাওনা পরিশোধ করা হচ্ছে। তাদের ১৫ দিনের জন্য ছুটি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া চায়না এবং বাঙালি শ্রমিকদের মধ্যে সুসম্পর্ক তৈরি করার জন্য নতুন করে বিসিপিসিএলের পক্ষ থেকে ১০ জন দোভাষী নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

এ সময় বিসিপিসিএল এর নির্বাহী প্রকৌশলী রেজওয়ান ইকবাল খান, জোবায়ের আহমেদ, তারিক নূর, ওয়াং শিয়াং শি, পিনজুর রহমান, শহিদুল ইমনসহ গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।