‘শরবত কর্মসূচি’র পর জুরাইনে ওয়াসার পানি আরো দূষিত হয়েছে

মঙ্গলবার, মে ৭, ২০১৯

ঢাকা : ওয়াসার পানি দিয়ে তৈরি শরবত ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালককে (এমডি) পান করানোর কর্মসূচি পালন করার পর রাজধানী জুরাইন ও আশপাশের এলাকার পানি আরো দূষিত হয়েছে বলে অভিযোগ করেন জুরাইনবাসী।

জুরাইনবাসী আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত গণশুনানিতে এসে এমন অভিযোগ করেন। তারা গত ২৩ এপ্রিল ওয়াসার এমডিকে শরবত পান করানোর কর্মসূচিতে যুক্ত ছিলেন। দূষিত পানির ব্যাপারে ওয়াসার দুর্নীতিকে মূল সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করা হয় গণশুনানিতে।

ওয়াসার নিরাপদ পানি আন্দোলনের মুখপাত্র মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে জুরাইনের কিছু প্রতিবাদী মানুষ গত ২৩ এপ্রিল এসেছিলেন ওয়াসার পানি দিয়ে তৈরি শরবত ওয়াসার এমডিকে পান করাতে।

এর কয়েকদিন আগে ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান বলেন, ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়। যদিও এমডিকে সেদিন শরবত খাওয়ানো যায়নি, কিন্তু শরবত খাওয়ানোর ওই কর্মসূচি দেশব্যাপী ব্যাপক আলোচিত হয়ে ওঠে। কিন্তু এতে কি কোনো ফল এসেছে? কী বলছেন শরবত খাওয়াতে আসা সেদিনের প্রতিবাদী মানুষরা?

জুরাইনের বাসিন্দা মিজানুর রহমান বলেন, ‘জুরাইন ও পাশের দনিয়া এলাকায় পানি সংকট আগের চেয়ে বেড়েছে। পানির নামে যে বর্জ্য আসে অনেকের বাসায়, সেগুলো নানাভাবে জানানোর পরও সমাধান হয়নি।’

মিজানুর রহমান বলেন, ‘আজকে রোজা শুরু হয়েছে, এ কারণে ওই এলাকায় যদি ক্ষোভ বিক্ষোভের ঘটনা ঘটে তাহলে এর দায়-দায়িত্ব সরকারকেই নিতে হবে।’

শরবত কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া এক ব্যক্তি বলেন, ‘ওই প্রতিবাদে অংশ নেওয়ার পরে আমাকে ওয়াসা থেকে পাঁচটি নম্বর ব্যবহার করে ফোন দেওয়া হয়েছিল। তারা শুধু আমার বাসা নম্বর জানতে চায়। আমার বাসায় আসতে হবে কেন, আমার বাসায় যে সমস্যা এলাকার সব বাসায়ই তো একই সমস্যা।’

ওয়াসার নিরাপদ পানি আন্দোলনের ব্যানারে আয়োজিত গণশুনানিতে যোগ দিয়েছিলেন ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে আসা মানুষ। এক ব্যক্তি বলছিলেন, সকালে অফিসে যাওয়ার জন্য গোসল করতে গিয়ে পানি দেখা যায় হলুদ, আবার অনেক সময় থাকে কালো। তখন মনটা অনেক খারাপ হয়ে যায়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত তেল-গ্যাস-খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ মনে করেন, দুর্নীতি যত দিন বন্ধ করা না যাচ্ছে, ততদিন ওয়াসার পানি কেবল দূষিতই হবে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক বলেন, গায়ে পড়ে টাকা পয়সা খরচ করে নিজেদের সম্পদ নষ্ট করার এমন দৃষ্টান্ত পৃথিবীর আর কোথাও আছে বলে আমার সন্দেহ আছে।

এত প্রাকৃতিকভাবে আমরা সব পাচ্ছি, আমরা বন পাচ্ছি, পানি পাচ্ছি। টাকার অভাবে না, টাকা খরচ করার কারণে আমাদের পানির সমস্যাটা হচ্ছে। টাকা দিয়ে যেসব প্রকল্প করা হচ্ছে তা কাজে লাগছে না। এসবের কারণে পানি দূষিত হচ্ছে। তবে যে ওয়াসার বিরুদ্ধে এত অভিযোগ, সেই ওয়াসার কোনো প্রতিনিধি গণশুণানিতে আসেননি।