জনে জনে জনতা গড়ার ডাক দিলেন দুদু

সোমবার, মার্চ ২৫, ২০১৯

ঢাকা : দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, ‘যে কারণেই হোক না কেন, এটি সত্যি যে আজকে আমরা মানুষের কাছে যেতে পারছি না।

কিন্তু দেশকে গণতন্ত্রের ধারায় ফেরাতে হলে, দেশনেত্রীকে কারাগার থেকে মুক্ত করতে হলে আমাদের মানুষের কাছে যেতে হবে। আমি বলবো- সারা দেশে জনে জনে জনতা গড়ে তুলুন। সবাই উচ্চকণ্ঠে আওয়াজ তুলুন- “জেলের তালা ভাঙবো, খালেদা জিয়াকে আনবো”।’

সোমবার (২৫ মার্চ) বিকেলে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপি আয়োজিত স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভা চলাকালে দর্শক সারিতে থাকা নেতাকর্মীরা কর্মসূচি চেয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন।

এসময় দুদু বলেন, ‘আমার এক তরুণ বন্ধু ‘কর্মসূচি দেন কর্মসূচি দেন’ বলে কয়েকবার উঠে দাঁড়িয়েছেন। আমি তার প্রতি শ্রদ্ধা ও অভিনন্দন জানিয়ে বলতে চাই, বাবা আমি তো তোমার দিকেই তাকিয়ে ছিলাম। তুমি তো সভা না করেই চলে গেলে।’

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আজকে এটাই হচ্ছে আমাদের বিরোধীদলীয় নেতাদের অবস্থা। মাঝেমধ্যেই আমরা ফাল (লাফ) পেরে উঠছি, কিন্তু আমরা কি আজকে একবারের জন্য স্লোগান দিয়েছি- “জেলের তালা ভাঙবো খালেদা জিয়াকে আনবো”? এই স্লোগানটা যখন আকাশে বাতাসে, উচ্চকণ্ঠে মানুষের হৃদয়ে ঢুকিয়ে দিতে পারবো, সেই মানুষই যখন আমার স্লোগানে রাস্তায় নেমে আসবে, সেইদিনই খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে।’

ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, ‘আমি কৃষকদের রাজনীতি করি, যদি কৃষকের কাছে না যাই, যদি যুবকদের কাছে না যাই, কী করে হবে? ঘরে বসে থাকলে তো এমনিতেই ভয় থাকে। একটু বাহিরে বের হয়ে আসুন, দেখুন মানুষ আপনার জন্য অপেক্ষা করছে।’

কৃষক দলের এ আহ্বায়ক আরও বলেন, ‘ছাত্রদল পারে না এমন কিছু নাই, যুবদল পারে না এমন কিছু নাই। আজকে আমাদের যতোই না-পাওয়ার বেদনা থাকুক না কেন, আমাদেরকে এক জায়গায় দাঁড়াতে হবে। সেই জায়গাটা হবে বেগম জিয়ার জায়গা, তারেক রহমানের জায়গা।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর:(অব:) হাফিজ উদ্দীন আহমেদ বীর বিক্রম, ডা: এ জেড এম জাহিদ হোসেন, নিতাই রায় চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ বক্তব্য দেন।