এবার নেদারল্যান্ডসে বন্দুকধারীর হামলা, নিহত ১

সোমবার, মার্চ ১৮, ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : হামলার স্থানে তিনটি হেলিকপ্টার মোতায়েন করেছে নেদারল্যান্ডস সরকার। পুলিশের মুখপাত্র জুস্ট ল্যানশ্যাগে বলেছেন, একটি ট্রামে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থলে হেলিকপ্টার পাঠানো হয়েছে। হামলাকারী গাড়িতে পালিয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের স্মৃতি এখনও টাটকা। এরই মধ্যে ফের বন্দুকধারীর হামলায় আতঙ্ক ছড়াল ইউরোপে। নেদারল্যান্ডসের ইউট্রেখট শহরে যাত্রীবাহী ট্রামে বন্দুক হামলায় একজন নিহত ও আরো কয়েকজন আহত হয়েছেন। হামলার পেছনে সন্ত্রাসী উদ্দেশ্য রয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ।

সোমবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটেঅক্টোবর ২১ স্কয়ারের কাছে ট্রামের (যাত্রীবাহী যান) ভিতর ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি চালায় বন্দুকধারী। এসময় অনেক যাত্রী আহত হয়েছেন বলে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে। হামলার পরই পালিয়ে যায় বন্দুকধারী।

ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান বলছে, হামলার স্থানে তিনটি হেলিকপ্টার মোতায়েন করেছে নেদারল্যান্ডস সরকার। পুলিশের মুখপাত্র জুস্ট ল্যানশ্যাগে বলেছেন, একটি ট্রামে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়েছে দুর্বৃত্তরা। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থলে হেলিকপ্টার পাঠানো হয়েছে। হামলাকারী গাড়িতে পালিয়েছে।

ঘটনাস্থল এড়িয়ে চলাচলের জন্য স্থানীয়দের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে পুলিশ। প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেল আরটিভি বলছে, তিনি একজন নারীকে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখেছেন। ঘটনাস্থল থেকে অনেক মানুষকে দৌড়ে পালাতে দেখেছেন তিনি।

দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী ইউট্রেখট ইউনিভার্সিটি মেডিকেল সেন্টারকে আহতদের জরুরি সেবা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে। এক প্রত্যক্ষদর্শী দেশটির স্থানীয় নিউজ আউটলেট এনইউ.এনএলকে বলেন, ‘একজন বন্দুকধারী আচমকা এলোপাতাড়ি গুলি শুরু করে।’

তবে এডি.এনএল নামের দেশটির আরকেটি সংবাদমাধ্যমে প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে জানানো হয়েছে, চারজন বন্দুকধারী ট্রাম স্টেশনের পাশে এক নারীর ওপর অতর্কিতে বন্দুক হামলা শুরু করে।

ইন্ডিয়াটাইমসের খবরে বলা হয়েছে, দেশটির প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটে বলেছেন, তিনি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। হামলার পর সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা সঙ্কটকালীন জরুরি বৈঠকে বসছেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ডাচ রেডিও বলছে, হেগে সরকারের বিভিন্ন দফতরে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে।

অক্টোবর ২১ স্কয়ারের পাশের জংশনে ট্রামে এ হামলার ঘটনার পরপরই ঘটনাস্থলে দেশটির জরুরি সার্ভিস ও অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিটের সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। ওই এলাকায় ট্রাম চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।