সরে দাঁড়াবেন জাপার প্রার্থীরা!

বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

ঢাকা : আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের বাইরে ১২০টিরও বেশি আসনে প্রার্থী দিয়েছে জাতীয় পার্টি। আসন ভাগাভাগি নিয়ে বনিবনা না হওয়াতেই নাকি এসব আসনে উন্মুক্ত প্রার্থী দিয়েছে জাপা-এমনটিই শোনা যাচ্ছিল।

তবে ভোটের শুরুতেই মহাজোটের প্রার্থী ছাড় দিয়ে মংমনসিংহ-৭ আসন থেকে সরে দাড়ান জাপা কো চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৪ আসনের পাশাপাশি ময়মনসিংহ-৭ আসনেও মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন তিনি। বুধবার ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসন থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন মহাজোটের হয়ে লাঙল প্রতীকের প্রার্থী রওশন এরশাদ।

এদিকে ঢাকা-১৩ আসনে মহাজোটের প্রার্থী সাদেক খানকে সমর্থন জানিয়ে ভোটের মাঠ থেকে সরে দাঁড়ালেন একই আসনের জাতীয় পার্টির উন্মুক্ত প্রার্থী শফিকুল ইসলাম সেন্টু।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো বলছে, আগামী দিনে অধিকাংশ আসনগুলোতেই নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়বেন মহাজোটের বাইরে থেকে নির্বাচনে দাঁড়ানো জাপার প্রার্থীরা।

এতগুলো আসনে জাপার প্রার্থী থাকায় নির্বাচেনী মাঠে শুরুতেই আওয়ামী লীগ ধাক্কা খাবে বলেই মনে করছিল। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন এমন একাধিক প্রার্থী রাখা আওয়ামী লীগের কৌশলগত অংশ হতে পারে। বৃহস্পতিবারও এ নিয়ে ইঙ্গিত দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলারের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, নির্বাচনের মাঠ থেকে বিএনপি যদি চলে যায়, সে ক্ষেত্রে নির্বাচনটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার জন্য কিছু সুনির্দিষ্ট কৌশল আছে। সে কৌশলের অংশ হিসেবে ‘কৌশল’ হিসাবে মহাজোটের বিদ্রোহীদের রাখা হয়েছে, যারা দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করবেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের একটা কৌশল আছে। কৌশলটা তো বলব না। আমাদের সুস্পষ্ট কৌশল আছে। এমনিই ছেড়ে দিয়েছি আমরা? আমাদের প্রার্থীর বিরুদ্ধে অ্যালায়েন্স দাঁড়িয়ে গেছে, আমরা না বুঝে কি দিয়েছি এটা।’

বিএনপি বলছে আওয়ামী লীগ তাদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে -এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘না না, তারা সরে যাবে বলেই আমরা অ্যালায়েন্সকে নিয়ে কৌশল করেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘নির্বাচনের দিন বুঝতে পারবেন। ওনারা (বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট) যদি সরে (নির্বাচন থেকে) যায়? তারপর? আবার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার ফাঁদ তৈরি করতে দেব না।’