রুহুল আমিন হাওলাদারকে মহাসচিবের পদ থেকে সরানোর নেপথ্যে

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৪, ২০১৮

নিউজ ডেস্ক: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বাকি আর মাত্র ক’দিন। ভোটের দিন যতই এগিয়ে আসছে রাজনৈতিক দলগুলোর ব্যস্ততা ততই বাড়ছে। এরই মধ্যে দেশের অন্যতম রাজনৈতিক দল জাতীয় পার্টিতে (এরশাদ) এক হুলস্থুল কাণ্ড ঘটে গেছে। অনেকটা হঠাৎ করেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে রাজনৈতিকভাবে ঘনিষ্ট দলটিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে।

রুহুল আমিন হাওলাদারকে মহাসচিবের পদ থেকে সরিয়ে এই পদে সরকারের প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গাকে নিয়োগ করেছেন দলটির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ।

এখন নতুন করে আলোচনাও শুরু হয়েছে ঠিক কী কারণে সরানো হলো হাওলাদারকে?

সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচনী জোটগুলো যখন আসন ভাগাভাগি ও প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে তুমুল ব্যস্ত, ঠিক তখনই রুহুল আমিন হাওলাদারকে সরিয়ে দিলেন জেনারেল এরশাদ।

তার পরিবর্তে দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মশিউর রহমান রাঙ্গাকে মহাসচিবের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তিনি মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করতে দলের চেয়ারম্যানের চিঠি পেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

খুব সংক্ষিপ্তভাবে মশিউর রহমান রাঙ্গা বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘চেয়ারম্যান (এইচ এম এরশাদ) রুহুল আমিন হাওলাদারকে অব্যাহতি দিয়ে আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন।’

দলটির সিনিয়র নেতারা এরশাদের সিদ্ধান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, তবে এ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোন কথা বলতে রাজি হননি।

কেন সরানো হলো হাওলাদারকে:

জাতীয় পার্টির একজন সিনিয়র নেতা বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, সাম্প্রতিক সময়ে আওয়ামী লীগের সাথে আসন নিয়ে দরকষাকষির সময় জাতীয় পার্টিতে মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠে খোদ দলীয় নেতাদের মধ্য থেকেই।

দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কয়েকজন প্রকাশ্যে এ সংক্রান্ত অভিযোগ আনেন এবং তাদের ক্ষোভের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন রুহুল আমিন হাওলাদার।

আবার এই কথিত মনোনয়ন বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে এরশাদের নাম গণমাধ্যমে উঠে আসায় নিজের ও দলের ভাবমূর্তি রক্ষার স্বার্থেই রুহুল আমিন হাওলাদারকে সরিয়ে দিয়েছেন এরশাদ – এমনটাই জানিয়েছেন ওই নেতা।

দলের আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর মনোনয়ন নিয়ে যা ঘটেছে তাতে জেনারেল এরশাদ ব্যাপক ক্ষুব্ধ হয়েছেন।

‘স্যার চেয়েছিলেন বাবলু চট্টগ্রাম থেকে মহাজোটের প্রার্থী হোক। কিন্তু তাকে কক্সবাজারে দেয়া হয়েছে এবং পরে রংপুরের একটি আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী করা হয়েছে। আবার বাবলুর গাড়িতে হামলার ঘটনাও ঘটেছে। এসব ঘটনায় এরশাদ মহাসচিবের ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন।’

তাকে কেন সরিয়ে দেয়া হয়েছে কিংবা মনোনয়ন বাণিজ্য সংক্রান্ত অভিযোগের বিষয়ে কথা বলার জন্য হাওলাদারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

তবে তার স্ত্রী নাসরিন জাহান রত্না বিবিসি বাংলার সঙ্গে কথা বলেছেন। জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য নাসরিন জাহান রত্না বলেছেন, তার স্বামীর বিরুদ্ধে আনা ‘এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা’।

তিনি বলেন, ‘মহাসচিব পরিবর্তন করেছেন পার্টির চেয়ারম্যান এবং সে এখতিয়ার উনার আছে।’

হাওলাদার কবে থেকে মহাসচিব:

সাবেক সেনা প্রধান এইচ এম এরশাদ যখন ক্ষমতায় ছিলেন তখন থেকেই জাতীয় পার্টির রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছেন রুহুল আমিন হাওলাদার। তবে মহাসচিব হিসেবে তার পদচ্যুতির ঘটনা এর আগেও ঘটেছিল।

এরশাদ সরকারের সাবেক এই মন্ত্রী প্রথম মহাসচিব হয়েছিলেন ২০০২ সালে। দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালনের পর ২০১৩ সালের এপ্রিলে তাকে অব্যাহতি দিয়েছিলেন এরশাদ।

কিন্তু এর দুই বছর পরই ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে তাকে আবার মহাসচিব নিযুক্ত করেন জেনারেল এরশাদ।

এবার তাকে সরিয়ে এরশাদ তার জায়গায় তুলে আনলেন মশিউর রহমান রাঙ্গাকে, যিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের একজন প্রতিমন্ত্রী।

এরশাদ হাসপাতালে, দল চালিয়েছে কে?

প্রায় এক সপ্তাহ ধরে অসুস্থতার জন্য সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে আছেন এরশাদ এবং এর মধ্যেই সরকারি দল আওয়ামী লীগের সাথে মহাজোটের আসন ভাগাভাগি নিয়ে আলোচনা করেছেন মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার।

সে আলোচনার প্রেক্ষাপটেই জাতীয় পার্টি থেকে প্রার্থীদের চূড়ান্ত করা হয়েছে যে কারা মহাজোটের মনোনয়ন পাবেন।

হাওলাদার নিজের ও স্ত্রীর মনোনয়ন নিশ্চিত করলেও আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটে প্রেসিডিয়াম সদস্য সালমা ইসলামসহ দলের কয়েকজন প্রভাবশালী নেতার মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে পারেননি।

ফলে ক্ষুব্ধ হয়ে সালমা ইসলাম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, আর উত্তরাঞ্চলে আরেক নেতা আবদুর রশীদ সরকার বিএনপিতে যোগ দিয়ে দলটির মনোনয়ন পেয়েছেন। সালমা ইসলাম বর্তমান সংসদের সদস্য। অন্যদিকে, মিস্টার সরকার একজন সাবেক সংসদ সদস্য।

দলটির একজন সিনিয়র নেতা বলছেন, তিনি মনে করেন ক্ষোভ সামাল দেয়া, ভাবমূর্তি ফিরিয়ে আনা এবং দলের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এরশাদ।বিবিসি বাংলা