ষষ্ঠবার ছয় উইকেট মিরাজের

রবিবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৮

স্পোর্টস ডেস্ক : ঢাকা টেস্টে স্পিনারের ওপর ভরসা করতে কোনো পেসার রাখেনি বাংলাদেশ। সেই স্পিন বিষেই নীল হলো ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। আর স্পিনার মিরাজ একাই তুলে নিয়েছে সাত উইকেট। এ নিয়ে কেরিয়ারে ষষ্ঠবারের মতো চয় উইকেট বা তার বেশি উইকেট নিলেন অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজ।

৭৫ রানে পাঁচ উইকেট নিয়ে আজ ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৩৫ রান যোগ করে অলআউট হয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৫০৮ রানের লিডে খেলতে নেমে প্রথম ইনিংসে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১১০ রান করে। এখনো পিছিয়ে আছে ৩৯৭ রানে। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ সাত উইকেট নেন মেহেদী হাসান মিরাজ। সাকিব আল হাসান নেন তিন উইকেট।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে উইন্ডিজের বিপক্ষে দুটি রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। প্রথমটি- সফরকারী ব্যাটারদের প্রথম পাঁচজনকে বোল্ড আউট করে ক্রিকেটের ১২৮ বছরে নতুন ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশ। যা টেস্ট ক্রিকেটে ঘটেছে মাত্র তিনবার!

আর দ্বিতীয়টি- দলের প্রতিটি ব্যাটসম্যানের দুই অঙ্কের স্কোর! এটি টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে ১৪তম বারের ঘটনা। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম।

প্রথম ইনিংসে মিরপুরের পিচে ৫০৮ রানের পাহাড় গড়েন মাহমুদউল্লাহ-সাদমানরা। প্রথম ইনিংসের ১৩৯.৬ ওভারে (দ্বিতীয় দিন, দ্বিতীয় সেশন) চেজের বল বাউন্ডারিতে পাঠিয়ে তিন অঙ্কের ঘর ছোঁয়ার উল্লাসে মেতে উঠেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। এর আগে ক্যারিয়ারে দুটি সেঞ্চুরি ছিল এ ডানহাতি ব্যাটসম্যানের। আজ হ্যাটট্রিক সেঞ্চুরি করেন তিনি। নিজের ব্যক্তিগত তৃতীয় শতক পূরণ করতে ২০৩ বল খরচ করতে হয় মাহমুদুল্লাহকে।

অভিষিক্ত সাদমান ইসলাম ৭৬, অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ৮০ ও লিটন দাস করেন ৫৪ রান। এ ছাড়া মোহাম্মদ মিথুন ও মুমিনুল হক ২৯ রান করে সাজঘরে ফিরে যান। তাইজুল ইসলাম ২৬, সৌম্য সরকার ১৯, মেহেদী মিরাজ ১৮ ও মুশফিকুর রহিম ১৪ রান করে আউটন হন। নাঈম হাসান সর্বনিম্ন ১২ রান করে অপরাজিত থাকেন। শুক্রবার টস জিতে ২৫৯ রান করে দিন শেষ করে টাইগাররা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে সর্বোচ্চ হয়ে সর্বোচ্চ দুই উইকেট করে নেন কেমার রোচ, ওয়ারিক্যান, দেবেন্দ্র বিশু ও ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। এ ছাড়া শিরমন লুইস ও রোস্টন চেজ নেন একটি করে উইকেট।