ট্যুরিস্ট ভিসায় এসে স্থায়ী বসবাস, প্রতারণা

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৯, ২০১৮

ঢাকা : প্রতারণার অভিযোগে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে অবৈধভাবে বসবাসরত আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের ১৪ জন নাগরিককে আটক করেছে র‌্যাব-১। বুধবার রাতে তাদের আটক করা হয়।

আটকদের মধ্যে নাইজেরিয়ার ৭ জন, উগান্ডার ২, ক্যামেরুনের ১, কঙ্গোর ১, লাইবেরিয়ার ১, তানজানিয়ার ১ এবং মোজাম্বিকের ১ জন নাগরিক রয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে কারওয়ান বাজারের র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, এই নাগরিকরা মূলত ফুটবল খেলা ও বিভিন্ন ব্যবসার নামে বাংলাদেশে আসেন ট্যুরিস্ট ভিসায়। ৩-৬ মাস পর ভিসার মেয়াদ শেষ হলেও একেকজন ২-১০ বছর ধরে বাংলাদেশে রয়ে গেছেন। তারা ১০-১২ জন করে বিভিন্ন গ্রুপ তৈরি করে বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়ে আসছেন।

এদের আটকের সময় ২৯টি মোবাইল সেট, ২টি ল্যাপটপ, নগদ ১ লাখ ৫৮৫ টাকা, ১ হাজার ১৩ ডলার ও বিভিন্ন ব্যাংকের কয়েকটি চেক উদ্ধার করা হয়। চেকের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে গেলেই তাদের বিভিন্ন অপকর্মের তথ্য বেরিয়ে আসে বলে জানান এ র‌্যাব কর্মকর্তা।

র‌্যাবের বরাতে জানা যায়, আটকরা ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভুয়া অ্যাকাউন্ট তৈরি করেন। তারা নিজেদের আফগানিস্তানে যুদ্ধরত সৈনিক বা জাতিসংঘের কর্মকর্তা হিসেবে পরিচয় দিয়ে অনেকের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তোলেন। এক পর্যায়ে বন্ধুর জন্য দামি উপহার পাঠাবেন বলে প্রলোভন দেন।

কয়েকদিন পর এ চক্রেরই বাংলাদেশি সদস্যরা ভুক্তভোগী ব্যক্তিকে ফোন দিয়ে কাস্টমস বা ডাক বিভাগের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে কথা বলেন। ট্যাক্স ফি বা অবৈধ জিনিসের কথা বলে উপহার ছাড়ের জন্য বিভিন্ন অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেয় চক্রটি।

র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, এ চক্রের মূল হোতা হিসেবে মার্ক নামে নাইজেরীয় এক নাগরিককে শনাক্ত করা হয়েছে। তাকে এখনো আটক করা সম্ভব হয়নি।