আ.লীগের ২৬৪, বিএনপির ২৯৩ আসনে মনোনয়ন দাখিল

বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৯, ২০১৮

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরপেক্ষ নির্বাচনকালীন সরকারসহ বিভিন্ন দাবিতে বিরোধী দলগুলো নির্বাচনে না আসার ঘোষণা দিলেও শেষ পর্যন্ত সবগুলো দলই মনোনয়নপত্র দাখিল করেছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ২৬৪ আসনে এবং বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি ২৯৩ আসনে প্রার্থী দিয়েছে। আর জাতীয় পার্টি প্রার্থী দিয়েছে ২১০ আসনে।

৩ হাজার ৬৭ প্রার্থী মনোননয়পত্র দাখিল করেছেন বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। এদের মধ্য দলগুলোর প্রার্থী ২ হাজার ৫৬৯ জন। আর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৪৯৮ জন।

বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) মাঠ পর্যায় থেকে তথ্য সমন্বয় করে নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখা জানিয়েছে, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিবন্ধিত ৩৯টি দলের সবগুলোই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছে।

নির্বাচন কমিশনও বিষয়টিকে খুব গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। ইসি কর্মকর্তারা বলছেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি ও তার শরিকরা অংশ না নেওয়ায় ব্যবস্থাপনায় তেমন চ্যালেঞ্জ ছিল না। কিন্তু এবার সবগুলো দল মনোনয়ন জমা দেওয়ায় একে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছে। ইতিমধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা কর্মকর্তাদের সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সার্বক্ষণিক সতর্ক থেকে দায়িত্ব পালনের নির্দেশনা দিয়েছেন।

দলগুলো প্রার্থীর সংখ্যা:

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ (নৌকা): ২৮১ জন

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি (ধানের শীষ): ৬৯৬জন

জাতীয় পার্টি-জাপা (লাঙ্গল): ২৩৩ জন

জাতীয় পার্টি-জেপি (বাইসাইকেল): ১৭ জন

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবি (কাস্তে): ৭৭ জন

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদ (মই): ৪৯জন

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ (মশাল): ৫৩ জন

গণফোরাম (উদীয়মান সূর্য): ৬১ জন

বিকল্পধারা বাংলাদেশ (কুলা): ৩৭জন

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (তারা): ৫১ জন

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ (হাতপাখা): ২৯৯ জন

বাংলাদেশ খেলাফল আন্দোলন (বটগাছ): ২৬ জন

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ (গামছা): ৩৭জন

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (ছাতা): ১৫ জন

বাংলাদেশের সাম্যবাদী দল-এমএল (চাকা): ৩ জন

গণতন্ত্রী পার্টি (কবুতর): ৮ জন

বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (কুড়েঘর): ১৪ জন

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি (হাতুড়ি): ৩৩ জন

জাকের পার্টি (গোলাপ ফুল): ১০৮ জন

বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপি (গরুর গাড়ি): ১১ জন

বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন (ফুলের মালা): ২০ জন

বাংলাদেশ মুসলিম লীগ (হারিকেন): ৪৯জন

ন্যাশনাল পিপলস পার্ট(আম): ৯০ জন

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ (খেঁজুর গাছ): ১৫ জন

গণফ্রন্ট (মাছ): ১৬ জন

প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল-পিডিপি (বাঘ): ১৬ জন

বাংলাদেশ ন্যাপ (গাভী): ৪ জন

বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (কাঁঠাল): ১৩ জন

ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ (চেয়ার): ২৮ জন

বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি (হাতঘড়ি): ৫ জন

ইসলামী ঐক্যজোট (মিনার): ৩২ জন

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিম (রিকশা): ১২ জন

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট (মোমবাতি): ২১ জন

জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা (হুক্কা): ৬ জন

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি (কোদাল): ৩০জন

খেলাফত মজলিশ (দেয়ালঘড়ি): ১২ জন

বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল (হাতপাঞ্জা): ১৭ জন

বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট (ছড়ি): ১ জন

বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ (টেলিভিশন):৭১ জন।

দশম সংসদ নির্বাচনে ১২টি দল অংশ নেয়। নবম সংসদে ৩৮, অষ্টম সংসদে ৫৫, সপ্তম সংসদে ৮১, ষষ্ঠ সংসদে ৪২, পঞ্চম সংসদে ৭৫, তৃতীয় সংসদে ২৮, দ্বিতীয় সংসদে ২৯ এবং প্রথম সংসদ নির্বাচনে ১৪টি দল অংশ নেয়।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ২ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহার ৯ ডিসেম্বর।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন