একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

ক্রীড়াঙ্গনে আ’লীগ থেকে মনোনয়ন পেলেন যারা

রবিবার, নভেম্বর ২৫, ২০১৮

ঢাকা: একাদশ জাতীয় নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের চিঠি দেয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। আজ রোববার (২৫ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে দলীয় প্রার্থীদের চিঠি দেওয়া শুরু হয়। দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এই চিঠি বিতরণ করছেন।

দলীয় মনোনয়নের চিঠি যাঁরা পেয়েছেন, তাঁদের একটি তালিকা আওয়ামী লীগ সূত্রের কাছ থেকে পাওয়া গেছে। এই তালিকা তাৎক্ষণিকভাবে যাচাই করা যায়নি। তবে আওয়ামী লীগ শিগগির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করবে বলে জানা গেছে।

নৌকা মার্কা নিয়ে নির্বাচনের আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন ক্রীড়াঙ্গনের শতশত মানুষ। রোববার চিঠি বিতরণের প্রথম দিনে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ক্রীড়াঙ্গনের যাদের ভাগ্য খুলেছে তারা হলেন:

ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা (নড়াইল-২), যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার (মাগুরা-২), সাবেক যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের (নোয়াখালী-৫), আবাহনী লিমিটেডের পরিচালক, বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সাবেক সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সভাপতি শাহরিয়ার আলম (রাজশাহী-৬), বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি সাবেক ফুটবলার আবদুস সালাম মুর্শেদী (খুলনা-৪), আবাহনীর পরিচালক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন (কিশোরগঞ্জ-৬)।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক সভাপতি আ হ ম মোস্তফা কামাল (কুমিল্লা-১০), বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী (ঢাকা-৯), বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক পরিচালক গোলাম দস্তগীর গাজী (নারায়ণগঞ্জ-১), সাবেক অ্যাথলেট ও বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভানেত্রী মাহবুব আরা বেগম গিনি (গাইবান্দা-২), জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবির পরিচালক নাঈমুর রহমান দুর্জয় (মানিকগঞ্জ-১)।

জাতীয় সংসদের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান জাহিদ আহসান রাসেল (গাজীপুর-২), বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সহ-সভাপতি ও আবাহনীর ভারপ্রাপ্ত ডাইরেক্টর ইনচার্জ কাজী নাবিল আহমেদ (যশোর-৩), আবাহনী লিমিটেডের চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান (ঢাকা-১), বাংলাদেশ স্কোয়াশ র‌্যাকেটস ফেডারেশনের সভাপতি কর্ণেল ফারুক খাঁন (গোপালগঞ্জ-১), ড. আবদুস সোবহান গোলাপ (মাদারীপুর-৩) ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাবেক সহ-সভাপতি বীর বাহাদুর (বান্দরবান)।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বেশিরভাগ আসনে আগেই দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করে রেখেছিল আওয়ামী লীগ। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের জরিপ এবং তৃণমূলের মতামত নিয়ে প্রার্থী ঠিক করে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন দলীয় মনোনয়ন বোর্ড। মনোনয়ন নির্ধারণে শেখ হাসিনার কথাই শেষ কথা।

দলীয় মনোনয়ন ঠিক হয়ে গেলে মহাজোটের শরিকদের সঙ্গে আসন বণ্টন দিয়ে এতদিন প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হয়নি। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, মহাজোটের শরিকদের সঙ্গেও আওয়ামী লীগের আসন বণ্টন নিয়ে সমঝোতা হয়ে গেছে।

এর পরই আজ সকাল থেকে দলীয় প্রার্থীদের মনোনয়ন টিকিট দেয়া শুরু করে আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগামীকাল সোমবার বিকেল সাড়ে তিনটায় আনুষ্ঠানিকভাবে মহাজোটের তিনশ’ আসনের দলীয় মনোনয়নের তালিকা প্রকাশ করা হবে।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের দলীয় কার্যালয়ে আজ অনানুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার স্বাক্ষর সম্বলিত প্রার্থীদের দলীয় মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হয়েছে। যে সকল আসনে জোটের শক্তিশালী প্রার্থী নেই বা আওয়ামী লীগের শক্তিশালী প্রার্থী রয়েছে সে আসনগুলোতেই দলীয় প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হয়েছে।’

সেতুমন্ত্রী কাদের আরও বলেন, জোটের শরীকদের ৬৫ থেকে ৭০টি আসন দেয়া হবে। তবে এ সংখ্যা ৭০’র বেশি হবে না।

এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী সংসদের সদস্য এস এম কামাল হোসেন ও মারুফা আক্তার পপি উপস্থিত ছিলেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, আসন বন্টন নিয়ে শরীকদের সঙ্গে আলোচনা চলছে। ২৩০ টি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চুড়ান্ত করা হয়েছে। এ আসনগুলোতেই দলীয় প্রার্থীদের মনোনয়নের চিঠি দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, তবে ২৩০ টি আসনে দলীয় মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হলেও প্রয়োজনে প্রার্থীর ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসতে পারে। তাই মনোনয়নের চিঠি দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রার্থীদের কাছ থেকে প্রার্থীতা প্রত্যাহারের স্বাক্ষর সম্বলিত সম্মতিপত্রও রাখা হয়েছে।

আজকে যাদের চিঠি দেয়া হচ্ছে, সেসব আসনে শরিক দলের কাউকে দেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রয়োজনে দিতেও হতে পারে। সময় ও পরিস্থিতি যদি ডিমান্ড করে তা হলে বিবেচনা করব।