জেএসসি পরীক্ষার্থীকে অপহরণ করে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

মঙ্গলবার, নভেম্বর ২০, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশাল নগরীর জেএসসি পরীক্ষার্থীকে অপহরণ করে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ২০ নভেম্বর মঙ্গলবার জেলা জজ আবু শামীম আজাদ বিচারাধীন বরিশালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলাটি দায়ের হয়। ধর্ষিতাকে সাথে নিয়ে ধর্ষিতার মা আদালতে হাজির হয়ে এ মামলা করেন।

মামলায় ধর্ষক নগরীর সোনারগাঁও মুক্তিযোদ্ধা সড়ক এলাকার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর সিকদারের ছেলে দ্বীন ইসলাম সিকদার ও তার সহযোগী একই এলাকার সুমন গাজী, পলাশ সিকদার, মোসাম্মাৎ ফারজানা এবং সদর উপজেলার চর কাউয়া এলাকার জসিম সিকদারকে অভিযুক্ত করা হয়। অভিযোগে বাদী আদালতে বলেন, তার মেয়ে গত ৮ নভেম্বর সকালে জেএসসি পরীক্ষা দিতে দপদপিয়া ইউনিয়ন ডিগ্রী কলেজে যায়। আসার পথে সোনারগাও টেক্সটাইল মিলের গেইটের সামনে এলে ফারজানা শিশু পার্কে ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে।দ্বীন ইসলাম অটোগাড়ি নিয়ে এসে তাদের পার্কে নিয়ে যায়।

সেখানে দ্বীন ইসলাম তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। সে রাজি না হলে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখানো হয়। এতে ও রাজি না হলে বাদীর মেয়েকে সকল অভিযুক্তরা মিলে তাকে মটর সাইকেলে উঠিয়ে জোরপূর্বক জসিমের বাড়ি নিয়ে যায়।পরীক্ষার্থী কিশোরীকে একটি ঘরে আটক রেখে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত দ্বীন ইসলাম একাধিকবার তাকে ধর্ষণ করে।

এদিকে মেয়েকে খুজে না পেয়ে ৮ নভেম্বর বাদী কোতয়ালী মডেল থানায় সাধারন ডায়েরি করেন। অভিযুক্তরা এ খবর জানতে পেরে ধর্ষিতাকে হুমকি দিয়ে কয়েকটি কাগজে জোরপূর্বক সাক্ষর নিয়ে ১৭ নভেম্বর তাকে বাড়ির সামনে ফেলে রেখে চলে যায়।

বাদী ধর্ষিতার কাছ হতে বিস্তারিত জেনে থানায় মামলা করতে যায়।থানা পুলিশ মামলা না নিলে ওই ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেন। ট্রাইব্যুনাল ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে পাঠিয়ে দেন এবং পরীক্ষা শেষে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য শেবামেক অধ্যক্ষকে আদেশ দেন।

এক’ই সাথে মামলার বিষয় তদন্ত সাপেক্ষে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পিবিআই সদস্যদের আদেশ দেন বলে আদালত সূত্র জানায়।