সম্পর্ক ভাঙার আগে একবার নিজের দোষ খুঁজুন!

রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮

লাইফস্টাইল ডেস্ক : আপনার অতি ব্যস্ততা, স্বামী/স্ত্রীর সমস্যা, শ্বশুর-শাশুড়ীর মন্তব্য-এগুলোকেই কি বারবার আপনার সম্পর্ক ভাঙার জন্য দায়ী করছেন? কখনও ভেবে দেখেছেন, সমস্যা আপনার নিজের দিক থেকেও হচ্ছে কিনা? আসুন দেখে নিই এই সব সম্ভাব্য সমস্যা ও তার সমাধানের পখ।

আপনি কি সন্দেহবাতিক?
কোনও সম্পর্কে যদি একে অপরের প্রতি বিশ্বাস না থাকে, তা হলে সমস্যা ক্রমশ ঘোরালো হতে আরম্ভ করে। প্রথমদিকে মনে হতে পারে, আপনি ঈর্ষা বা পজ়েসিভনেসের জন্য এমনটা করছেন, সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে কিন্তু এ থেকেই বাজে ঝগড়া শুরু হয়।
কী করবেন: বয়ফ্রেন্ড বা সঙ্গীকে চোখে হারানো এক কথা, আর তাঁকে অকারণে সন্দেহ করাটা আর এক সমস্যা, দুটোকে গুলিয়ে ফেলবেন না।

নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন?
প্রতিটি মানুষের মনেই নির্দিষ্ট কিছু স্পর্শকাতর জায়গা থাকে। আপনি কেমন দেখতে, বেশি মোটা লাগছে কিনা ইত্যাদি দ্বিধা-দ্বন্দ্ব আসতেই পারে, তাতে অস্বাভাবিকতা নেই মোটেই। কিন্তু লাগাতার নিরাপত্তাহীনতায় যাঁরা ভোগেন, তাঁদের পক্ষে এবং তাঁদের সঙ্গে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখা কার্যত খুব মুশকিল।
কী করবেন: এই নিরাপত্তাহীনতার আসল কারণটা খুঁজে বের করার জন্য দরকারে বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিন। নিজেকে ভালোবাসুন।

অপরজনের সঙ্গে জুড়ে থাকতে চান?
পরস্পরের সঙ্গে সারাক্ষণ লেপটে থাকাটা কিন্তু কোনও সমাধান নয়, বরং তাতে সমস্যা আরও বাড়ার আশঙ্কাই বেশি।
কী করবেন: নিজেকে স্পেস দিন, পার্টনারকেও, সেটাই একমাত্র সমাধান।

আপনি কি খুব পিটপিটে?
বাড়ির সবকিছু একেবারে পারফেক্ট না থাকলে কি আপনার সাঙ্ঘাতিক অসুবিধে হয়? তাহলে আপনি শুচিবায়ুগ্রস্ত বা পিটপিটে।
কী করবেন: ঘরের কাজগুলো ভাগাভাগি করে নিতে পারেন, তাতে দু’জনেরই সুবিধে হবে।

কথায় কথায় কান্নাকাটি করেন?
সামান্য সামান্য ব্যাপারে কান্নাকাটি, হাত-পা ছুড়ে চিৎকার, ইমোশনাল ব্ল্যাকমেল করা কি আপনার অভ্যেসে পরিণত হয়েছে? এর ফলে কিন্তু সম্পর্কের সাঙ্ঘাতিক ক্ষতি হতে পারে।

কী করবেন: আপনিও কি রেগে গেলে প্রকাশ্যেই এমন ব্যবহার করেন? তা হলে কিন্তু অতি অবশ্যই ঠান্ডা মাথায় একবার সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলতে হবে আপনাকে এবং শুনতে হবে তার বক্তব্য।